দোয়ারায় নেশার ওষুধ খাইয়ে স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ, আটক ৩

দোয়ারাবাজার প্রতিনিধি
দোয়ারাবাজারে ইফতারির সাথে নেশার ওষুধ খাইয়ে দশম শ্রেণির এক শিক্ষার্থীকে ধর্ষণ করা হয়েছে। শুক্রবার দিবাগত রাতে উপজেলার বোগলাবাজার ইউনিয়নের বোগলা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় ধর্ষক রিপন মিয়াসহ আরও দুইজনকে আটক করেছে পুলিশ।
শুক্রবার সন্ধ্যায় উপজেলার বোগলাবাজার ইউনিয়নের কাঠালবাড়ি গ্রামের সুরুজ মিয়ার ছেলে রিপন মিয়া একই ইউনিয়নের বোগলা গ্রামের দশম শ্রেণির এক শিক্ষার্থীর ফুফাতো ভাই ফয়সাল (১২) এর মাধ্যমে ইফতারি পাঠায়।
এসময় বাংলাবাজার ইউনিয়নের উরুরগাঁও গ্রামের মৃত নিজাম উদ্দিনের ছেলে জসিম উদ্দিনের কাছ থেকে নেশার ওষুধ কিনে ইফতারিতে মিশিয়ে দেয়। নেশা মেশানো ইফতারি খাওয়ার পর মেয়ে এবং দাদা অজ্ঞান হয়ে গেলে মধ্যরাতে এসে রিপন তাকে ধর্ষণ করে।
ভোররাতে ঘুম ভাঙলে তাদের চিৎকার শুনে স্থানীয়রা আসলে সব খুলে বলে। পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে ধর্ষক রিপনসহ তার ফুফাতো ভাই এবং নেশা বিক্রেতা জসিম উদ্দিনকে আটক করে। এসময় ঘটনাস্থল থেকে ধর্ষণের আলামত জামাকাপড়সহ ইফতার সামগ্রী ও একটি ছুরি উদ্ধার করে। ভিকটিমকে উদ্ধার করে দোয়ারাবাজার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপেক্সে এ চিকিৎসা প্রদান করা হয়।
দোয়ারাবাজার থানার ওসি (তদন্ত) মনিরুজ্জামান বলেন, ধর্ষকসহ আরও দুইজনকে আটক করা হয়েছে। নেশা বিক্রেতা জসিম দীর্ঘদিন ধরে অজ্ঞান পার্টির সাথে জড়িত। সে অজ্ঞান পার্টির বড়ো ধরণের হোতা। এলাকায় শিশুদের দিয়ে নেশার ওষুধ বিক্রি করে এবং চোরাকারবারের সাথে জড়িত রয়েছে।