ধর্মপাশায় প্রতিবন্ধী ইজিবাইক চালককে মারধর

ধর্মপাশা প্রতিনিধি
ধর্মপাশায় নুরুজ্জামাল (৫৫) নামের এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে শারীরিক প্রতিবন্ধী ইজিবাইক চালককে মারধরের অভিযোগ পাওয়া গেছে। ইজিবাইক চালক (৩৮) আক্কেল আলী রোববার দুপুরে এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে সুবিচার চেয়ে লিখিত অভিযোগ করেছেন। গত শনিবার দুপুরে উপজেলার শয়তানখালী সেতু সংলগ্ন সড়কে আক্কেল আলীকে মারধরের ঘটনা ঘটে।
আক্কেল আলীর লিখিত অভিযোগ ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, উপজেলার সদর ইউনিয়নের আতকাপাড়া গ্রামের আক্কেল আলী একজন শারীরিক প্রতিবন্ধী। দুই আড়াই বছর ধরে তিনি উপজেলা সদরের আশপাশের সড়কে ইজিবাইক চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করছেন। দুটো পা অচল থাকায় হাতে ভর দিয়ে চলাফেরা করেন তিনি। ইজিবাইকে পা দিয়ে ব্রেক কষতে হয় বলে শুরুতে বিপাকে পড়েছিলেন। কিন্তু ব্রেককে বিশেষ কৌশলে ইজিবাইকে স্থাপন করে এক হাতে স্টিয়ারিং অন্য হাতে ব্রেক কষেন তিনি। গত শনিবার দুপুর ১২টার দিকে উপজেলার শয়তানখালী সেতু সংলগ্ন সড়কে ইজিবাইক নিয়ে যাত্রীর জন্য অপক্ষো করছিলেন। এমন সময় একই ইউনিয়নের কান্দাপাড়া গ্রামের মৃত আব্দুল হাসিদের ছেলে নুরুজ্জামাল কান্দাপাড়া থেকে একটি ইজিবাইকে করে সেখানে আসেন। তিনি ইজিবাইকের (তাকে পরিবহনকারী) চালককে ভাড়া ১৫ টাকা ভাড়া দিতে চাইলে ওই চালক ২০ টাকা দাবি করে। এ নিয়ে দুজনের মধ্যে বাকবিত-া শুরু হয়। নুরুজ্জামাল এগিয়ে গিয়ে প্রকৃত ভাড়া কতো তা আক্কেল আলীর কাছে জানতে চায়। আক্কেল আলী প্রকৃত ভাড়া ১৫ টাকা এবং কেউ জরুরি যেতে চাইলে ২০ টাকাও দিয়ে থাকে বলে জানায়। আক্কেল আলী ২০ টাকার কথা বলায় ক্ষ্যাপে গিয়ে নুরুজ্জামাল তার (আক্কেল) শার্টের কলার ধরে এলোপাতাড়ি কিল-ঘুষি মারতে থাকে। এতে আক্কেল আলী নিচে পড়ে গেলে আক্কেল আলীর পিঠে ও কোমড়ে লাথি দিতে থাকে নুরুজ্জামাল। এ সময় আশপাশের লোকজন এগিয়ে এসে আক্কেল আলীকে রক্ষা করে।
আক্কেল আলী বলেন, ‘আমার দুই পা অচল। অন্যের বোঝা না হয়ে দুই হাতকে কাজে লাগিয়ে ইজিবাইক চালিয়ে সংসার চালাই। আমি কোনো অপরাধ করিনি তবুও আমাকে মারধর করে আমার সম্মানহানী করা হয়েছে। আমি এর বিচার চাই।’
নাম প্রকাশ না করার শর্তে এ ঘটনার একজন প্রত্যক্ষদর্শী বলেন, ‘অন্য একটি ইজিবাইকে এসে অহেতুক আক্কেল আলীকে কিল-ঘুষি মেরেছেন নুরুজ্জামাল। এ ঘটনার সুষ্ঠু বিচার হওয়া দরকার।’
এ ব্যাপারে কোনোভাবেই নুরুজ্জামালের বক্তব্য জানা যায়নি।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মুনতাসির রহমান বলেন, ‘প্রতিবন্ধী ব্যক্তিকে মারধরের বিষয়টি অত্যন্ত দুঃখজনক। এ সংক্রান্ত অভিযোগ পেয়েছি। এ ব্যাপারে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য ধর্মপাশা থানার ওসিকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।’
ধর্মপাশা থানার ওসি মো. খালেদ চৌধুরী বলেন, ‘এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’