পাহাড়ি ঢলে মঙ্গলকাটা বাজার প্লাবিত

স্টাফ রিপোর্টার
ভারী বর্ষণ ও পাহাড়ি ঢলে সদর উপজেলার মঙ্গলকাটা বাজারসহ পার্শবর্তী এলাকার ঘর বাড়ি ও পুকুরের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। মঙ্গলবার সকালে বাজারের পাশে দলাই নদীর বেড়িবাঁধ ভেঙে পানি প্রবেশ করে এই ক্ষতি হয়। ঢলের পানি দোকানঘরে ঢুকে এবং পুকুরের মাছ ভেসে প্রায় ১০ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে।
স্থানীয় বাসিন্দা ও ব্যবসায়ী আইয়ুব খান, আব্দুল হানিফ, সেলিম মিয়া, আব্দুশ শহীদ, অহিদ মিয়া ও রুহুল আমিন জানান, মঙ্গলবার সকাল ৭ টায় পাহাড়ি ঢল প্রবলবেগে নামতে থাকে। এসময় মঙ্গলকাটা বাজারের পাশের দলাই নদীর বেড়িবাঁধ ভেঙে বাজারের শতাধিক দোকানঘরে পানি প্রবেশ করে। ব্যবসায়ীরা দোকানঘরে না থাকায় মালামালের ক্ষতি হয়। ছোট ছোট ব্যবসায়ীদের আড়াই লাখ টাকার মালামালের ক্ষতি হয়েছে।
বাজারের পাশের সড়ক ডুবে মঙ্গলকাটা গ্রামের ৩০ টি পুকুরের পাড় ডুবে যায়। এতে ৭-৮ লাখ টাকার মাছ ভেসে যায়।
মাছচাষী কামাল হোসেন, ইয়াছিন মিয়া, হামদু মিয়া, জাকির হোসেন, দেলোয়ার হোসেন জানান, সকালে হঠাৎ দলাই নদীরপাড় ভেঙে পাহাড়ি ঢল নেমে পুকুরের পাড় ডুবে যায়। পুকুরের মাছ আটকানোর সময় পাই নি আমরা।
পানিবন্দি আয়েশা বেগম ও মিনু মিয়া জানান, সকালে ঘুম থেকে ওঠেই দেখি বাড়ির উঠুনে পানি। নিমিষেই তলিয়ে যায় পুকুরের পাড়।
মঙ্গলকাটা বাজার পরিচালনা কমিটির সাধারণ সম্পাদক বুরহান উদ্দিন চৌধুরী জানান, হঠাৎ পাহাড়ি ঢল আসায় বাজারের অনেক দোকানপাটের ও মালামালের ক্ষতি হয়েছে।
স্থানীয় ইউপি সদস্য আব্দুল মোতালেব জানান, দলাই নদীর বেড়িবাঁধ ভেঙে বাজারে পানি প্রবেশ করে অনেক ক্ষতি হয়েছে। মঙ্গলকাটা গ্রামের পুকুরে থাকা মাছ ভেসে গেছে। এছাড়াও এলাকার সবজি ফসলের বেশ ক্ষতি হয়েছে।
জাহাঙ্গীরনগর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মুকশেদ আলী বললেন, পাহাড়িঢলে মঙ্গলকাটা বাজার প্লাবিত হয়েছে। এছাড়াও পুকুরের মাছ ঢলের পানিতে ভেসে গিয়ে চাষীদের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। মঙ্গলকাটা বাজারসহ প্লাবিত এলাকা পরিদর্শন করে ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের খোঁজ-খবর নিয়েছি।