পুলিশ ও আউটসোর্সিং কর্মীদের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া

স্টাফ রিপোর্টার
সুনামগঞ্জে আউট সোর্সিংয়ের ঠিকাদার নিয়োগের দরপত্র জমা দেওয়া নিয়ে সিভিল সার্জন কার্যালয়ের সামনে আউট সোর্সিংয়ের পুরাতন কর্মী ও পুলিশের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। এসময় পুলিশের লাটিচার্জে ১০ জন আউটসোর্সিং কর্মী আহত হয়। পরিস্থিতি সামাল দিতে পুলিশ ৮ আউটসোর্সিং কর্মীকে তাদের হেফাজতে নেয়। রোববার দুপুর ১২ টায় এই ঘটনা ঘটেছে। আউটসোর্সিং কর্মীরা বলেছে, ১১ মাস বেতন না পেয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছে তারা। এরমধ্যেই একই পদগুলোতে নতুন নিয়োগ প্রক্রিয়ায় ক্ষুব্ধ কর্মচারীরা সিভিল সার্জন কার্যালয়ের সামনে গেলে তাদের উপর লাটিচার্জ করা হয়।
পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সুনামগঞ্জ স্বাস্থ্য বিভাগে কর্মরত ২৩৪ কর্মচারী ১১ মাস হয় বেতন পায় নি। আদৌ বেতন হবে কী-না এই নিয়েও দুশ্চিন্তা রয়েছে তাদের। এই অবস্থায় রোববার একই পদে নতুন মেয়াদে লোক নিয়োগের জন্য ঠিকাদার নিয়োগের দরপত্র জমা দেবার সময় পুরাতন কর্মীরা বাঁধা দেয়। দরপত্র প্রদানে বাঁধা দেবার খবর পেয়ে কয়েকজন পুলিশ সেখানে যায়। পুলিশের সঙ্গেও আউট সোর্সিংয়ের পুরাতন কর্মীদের ধাক্কা ধাক্কির ঘটনা
ঘটে। শেষে পৌনে ১২ টায় সেখানে অতিরিক্ত পুলিশ পাঠানো হলে পুলিশের সঙ্গে আউট সোর্সিংয়ের কর্মীদের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে।
সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালের আউট সোর্সিং কর্মচারী তুহিন মিয়া জানান, ২০১৯ সালের ৩০ এপ্রিল সুনামগঞ্জ স্বাস্থ্য বিভাগে আয়া, বাবুর্চি, মালি, অফিস সহায়কসহ নানা পদে ২৩৪ জন কর্মচারী আউট সোর্সিংয়ের মাধ্যমে নিয়োগ করে ঢাকার ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান ‘অনেস্ট সিকিউরিটি সার্ভিস’। নিয়োগকালে দেওয়া চিঠিতে জুন’২০১৯ পর্যন্ত চাকরি’র মেয়াদ উল্লেখ করা হয়। বেতনও দুই মাসেরই পান এই ২৩৪ কর্মচারী। পরবর্তী সময়ে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান অনেস্ট সিকিউরিটি সার্ভিসের পক্ষ থেকে মৌখিকভাবে এই কর্মচারীদের কাজে থাকার কথা জানিয়ে বলা হয়, সকলের কার্যকাল নবায়ন হবে এবং বেতনও হবে। সকলে যেন স্ব স্ব কর্মস্থলে দায়িত্ব পালন করে। তারা সেভাবেই দায়িত্ব পালন করেছেন। কিন্তু এখনো তাদের বেতন হয় নি। এই অবস্থায় রোববার নতুন করে লোক নিয়োগের জন্য ঠিকাদার নেবার দরপত্র জমা দেবার সময় সকল আউটসোর্সিং কর্মীরা প্রতিবাদ করে। তারা সিভিল সার্জন কার্যালয়ের সামনে স্বাস্থ্যবিধি মেনে অবস্থান নেয়। পুলিশ তাদের উপর লাটিচার্জ করে। এসময় আমিরুল ইসলাম ও সালমা বেগমসহ ১০ আউটসোর্সিং কর্মচারী আহত হয়। ৮ জনকে পুলিশ আটক করে থানায় নিয়ে যায়।
সিভিল সার্জন ডা. শামস উদ্দিন বলেন, আউট সোর্সিংয়ের ঠিকাদার নিয়োগের দরপত্র ছিল। দরপত্র জমা দিতে এখানকার পুরাতন কর্মীরা বাধা দেওয়ায় পুলিশে খবর দেওয়া হয়। পুলিশ এসে তাদের সরিয়ে দেবার সময় ঠেলা ধাক্কা হয়েছে।
সুনামগঞ্জের পুলিশ সুপার মো. মিজানুর রহমান জানান, জেলা স্বাস্থ্য বিভাগে আউট সোর্সিংয়ের ঠিকাদার নিয়োগে দরপত্র জমা দেবার সময় আগের নিয়োগ প্রাপ্তরা বাধা দেয়। এই নিয়ে ঠেলা ধাক্কা হয়েছে। পুলিশ ৮ জনকে হেফাজতে নিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এনেছে।