বাঁধের পাশ থেকে ড্রেজার দিয়ে মাটি উত্তোলন বন্ধের দাবি

শান্তিগঞ্জ অফিস
শান্তিগঞ্জের দেখার হাওর সংলগ্ন আস্তমা ও আসামপুর গ্রামের পার্শ্ববর্তী উথারিয়া বেরিবাঁধ সহ কয়েকটি বাঁধের নিকটবর্তী সুরমা নদী থেকে ড্রেজার মেশিন দিয়ে মাটি উত্তোলন বন্ধের দাবিতে অভিযোগ করা হয়েছে। রবিবার আস্তমা এলাকাবাসী জেলা প্রশাসক বরাবর অভিযোগ দেন।
জানা যায়, দেখার হাওরের উথারিয়া বেরিবাঁধ শান্তিগঞ্জ, সুনামগঞ্জ সদর, ছাতক ও দোয়ারাবাজার এই চার উপজেলার বোর ফসল রক্ষার জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। বেরিবাঁধের ভিতর থেকে বিশেষ করে ৫০৪৮ এবং ৫৩০৩ দাগ সহ আশপাশের কয়েকটি বাঁধের কাছ থেকে অবৈধ ড্রেজার মেশিন দিয়ে মাটি কেটে নিলে সবগুলো বাঁধ হুমকির মুখে পড়বে এবং আগাম বন্যা আসামাত্র বেরিবাঁধ ধসে যাবে। তলিয়ে যাবে দেখার হাওরপাড়ের কৃষকের হাজার হাজার হেক্টর স্বপ্নের ফসল। ফসল রক্ষার স্বার্থে বাঁধের নিকটবর্তী নদী থেকে মাটি উত্তোলন বন্ধ করার দাবি জানান এলাকাবাসী।
জেলা প্রশাসক বরাবর অভিযোগ প্রদানকালে উপস্থিত ছিলেন সুনামগঞ্জ সরকারি কলেজের প্রাক্তন প্রভাষক চিত্ররঞ্জন তালুকদার, আস্তমা গ্রামের বিশিষ্ট মুরুব্বী মসুদ মিয়া, মাসুক মিয়া, তাজনুর, লিয়াকত আলী, আব্দুস শাহীদ, জিলিক মিয়া, জমিরুল হক, দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলার সাবেক ছাত্রলীগ নেতা মাসুক আহমেদ জয়কলস ইউনিয়নের ১ নম্বর ওয়ার্ডের মেম্বার হাবিবুর রহমান হাবিব, আস্তমা গ্রামের আজিমুল হক, সাজ্জাদ মিয়া, আংগুর মিয়া, আলিম উল্লাহ, জিল্লুল হক, ছাত্রলীগ নেতা শাকিল আহমেদ প্রমুখ।
এ ব্যাপারে জেলা প্রশাসক মো. জাহাঙ্গীর হোসেন জানান, বাঁধের কাছ থেকে কোনভাবেই ড্রেজার দিয়ে মাটি উত্তোলন করতে দেয়া হবে না। তদন্ত করে প্রতিবেদন প্রেরণের জন্য শান্তিগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আনোয়ার উজ জামানকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।