বাঙালিত্বকে মনেপ্রাণে ধারণ করতে হবে-পরিকল্পনা মন্ত্রী

স্টাফ রিপোর্টার
পরিকল্পনা মন্ত্রী এমএ মান্নান এমপি বলেছেন, প্রত্যেকরই নিজেকে ‘বাঙালি’ মনে করেই দায়িত্ব পালন করতে হবে। বারে বারে বাঙালিকে দাবিয়ে রাখার চেষ্টা করা হয়েছে। সর্বশেষের জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে পরাধীনতার যন্ত্রণা থেকে মুক্তি পেয়েছি আমরা। তিনি বলেন, বাঙালিত্বকে মনে প্রাণে ধারণ করতে হবে আমাদের, তাহলেই অনেক কিছুর সমাধান হয়ে যাবে।
শুক্রবার বিকালে জেলা পরিষদের উদ্যোগে সুনামগঞ্জ শহরের প্রাণকেন্দ্রে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনপূর্বক উপস্থিত মুক্তিযোদ্ধা ও সুধীজনদের উদ্দেশ্যে তিনি এমন মন্তব্য করেন।
পরিকল্পনা মন্ত্রী বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী গ্রামের মানুষ, সাধারণ মানুষের জন্য কাজ করেন, চিন্তা করেন, আমারও সব সময় এমনই ইচ্ছা থাকে, এজন্য তাঁর সঙ্গে কাজ করে শান্তি পাই। ব্যক্তিগতভাবে মন্ত্রী থাকার ইচ্ছায় কাজ করি না, এধরণের কোন আকাঙ্খাও আমার নেই।
এর আগে তিনি জেলা পরিষদ কর্তৃক এইচএসসি ও আলিম পরীক্ষায় জিপিএ-৫ প্রাপ্ত ১৫২ জন শিক্ষার্থীকে সংবর্ধনা প্রধান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন। এই অনুষ্ঠানে প্রত্যেক শিক্ষার্থীকে পাঁচ হাজার টাকার প্রাইজব- ও ক্রেস্ট তুলে দেওয়া হয়।
এ অনুষ্ঠানে মন্ত্রী শিক্ষার্থীদের আধুনিক, বিজ্ঞান মনস্ক হয়ে গড়ে ওঠতে অনুপ্রেরণামূলক বক্তব্য দেন। তিনি গবেষণা ও আবিস্কারে মনোনিবেশ করতেও উৎসাহ প্রদান করেন। মন্ত্রী দীর্ঘ সময় করোনার কারণে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় শিক্ষার্থীদের ক্ষতির বিষয়টি উল্লেখ করে তিনি বলেন, করোনা বিদায় নেওয়া শুরু হয়েছে, আর কিছুদিন মাস্ক ও হাত ধুয়ে করোনা সক্রমণরোধে সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে।
জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান, জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহসভাপতি নুরুল হুদা মুকুটের সভাপতিত্বে এবং সংস্কৃতিকর্মী-সাংবাদিক দেওয়ান গিয়াসের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন জেলা প্রশাসক জাহাঙ্গীর হোসেন, পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান বিপিএম, সুনামগঞ্জ পৌরসভার মেয়র নাদের বখ্ত, জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি রেজাউল করিম শামীম, শিক্ষাবিদ পরিমল কান্তি দে, তাহিরপুর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান করুণা সিন্ধু চৌধুরী বাবুল।
সন্ধ্যায় মন্ত্রী জেলা শিল্পকলা একাডেমীর গুণীজন সম্মাননা অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন।