বিষয়টি প্রশংসনীয় দাবি স্থানীয়দের

ধর্মপাশা প্রতিনিধি
আগামী প্রজন্মের কাছে মুক্তিযুদ্ধের বীরত্বগাঁথা তুলে ধরতে ও বীর মুক্তিযোদ্ধাদের স্মৃতি রক্ষার্থে দেশের বিভিন্ন স্থানে বীর মুক্তিযোদ্ধারে নামে রাস্তাঘাট নামকরণ চলছে। এরই ধারাবাহিকতায় ধর্মপাশা উপজেলায় বীর মুক্তিযোদ্ধাদের নামে সড়কের নামকরণ শুরু হয়েছে। মুক্তিযুদ্ধ ও বীর মুক্তিযোদ্ধাদের স্মৃতি রক্ষার্থে বিষয়টি অত্যন্ত প্রশংসনীয় বলছেন স্থানীয়রা।
দীর্ঘ নয় মাস রক্তক্ষয়ী যুদ্ধের মধ্য দিয়ে যারা এ দেশে স্বাধীনতার লাল সূর্য্য ছিনিয়ে এনেছেন সেই সকল বীর মুক্তিযোদ্ধাদের নামে দেশের বিভিন্ন স্থানে রাস্তাঘাট নামকরণের জন্য মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির ১৩তম বৈঠকের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। পরবর্তীতে এ ব্যাপারে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য জেলা প্রশাসক ও ইউএনওদেরকে নির্দেশনা প্রদান করা হয়। তারই ধারাবাহিকতায় ধর্মপাশা উপজেলার সেলবরষ ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ও উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডের সাবকে কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা নূর হোসেনের নামে ‘মাইজবাড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে সলপ নতুন মসজিদ পর্যন্ত’ এক কিলোমিটার দৈর্ঘের একটি নামকরণ করা হয়েছে। সোমবার সকাল সাড়ে ১১টার দিকে এ সড়ক সংস্কার কাজের উদ্বোধন করেন সুনামগঞ্জ-১ আসনের এমপি মোয়াজ্জেম হোসেন রতন। ২০২০- ২০২১ অর্থ বছরের ইজিপিপি ও ২০১৯-২০ অর্থ বছরের এলজিএসপি-০৩ প্রকল্পের আওতায় সিসি ব্লক দ্বারা এ সড়কের সংস্কার কাজ সম্পন্ন করা হবে। সংস্কার শেষ হলে এ সড়ক দিয়ে চলাচলকারী পথচারীদের দুর্ভোগ লাঘবের পাশাপাশি বীর মুক্তিযোদ্ধা নূর হোসেনের নামটিও স্মরণীয় হয়ে থাকবে বলে জানিয়েছেন স্থানীয়রা।
সেলবরষ ইউনিয়নের উত্তর বীর গ্রামের বাসিন্দা শাহ আব্দুল বারেক ছোটন বলেন, ‘মুক্তিযোদ্ধাদের নামের সড়কের নামকরণের বিষয়টি অত্যন্ত প্রশংসনীয়। সারাদেশেই এর ধারাবাহিকতায় অব্যাহত থাকুক।’
বীর মুক্তিযোদ্ধা নূর হোসেন বলেন, ‘আজকে আমি মনে করি একজন মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে আমার জন্ম সার্থক হয়েছে। এ সড়কের মধ্য দিয়ে এলাকাবাসীর দীর্ঘ দিনের দুর্দশা লাঘব হবে, এর চেয়ে গর্বের আর কিছু নেই।’
স্থানীয় এমপি মোয়াজ্জেম হোসেন রতন বলেন, ‘লাল সবুজের পতাকার সৈনিক বীর মুক্তিযোদ্ধার নামের সড়কের নামকরণ হওয়াতে আমরা আজ গর্বিত। এর মধ্য দিয়ে আমাদের নতুন প্রজন্ম বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস সম্পর্কে নতুন করে জানার সুযোগ পাবে।’