বীর মুক্তিযোদ্ধা বজলুল মজিদ চৌধুরী খসরু স্মরণে শোকসভা

স্টাফ রিপোর্টার
হাওর বাঁচাও আন্দোলনের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি প্রয়াত অ্যাড.বজলুল মজিদ চৌধুরী খসরু স্মরণে শোকসভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। মঙ্গলবার হাওর বাঁচাও আন্দোলন
কেন্দ্রীয় কমিটির উদ্যোগে বিকাল ৪টায় সুনামগঞ্জ পৌরসভার মুক্তমঞ্চে এই শোকসভা অনুষ্ঠিত হয়। শোকসভার শুরুতে স্বাগত বক্তব্য বক্তব্য রাখেন হাওর বাঁচাও আন্দোলনের সাধারণ সম্পাদক বিজন সেন রায়। হাওর বাঁচাও আন্দোলনের কেন্দ্রীয় কমিটির কার্যকরী সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আবু সুফিয়ান’র সভাপতিত্বে শোকসভায় বক্তব্য রাখেন সংগঠনের উপদেষ্টা রমেন্দ্র কুমার দে মিন্টু, জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি অ্যাড. শহীদুজ্জামান চৌধুরী, সিনিয়র আইনজীবী ও কলামিষ্ট হোসেন
তৌফিক চৌধুরী, জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক দেওয়ান ইমদাদ রেজা চৌধুরী, হাওর বাঁচাও আন্দোলন কেন্দ্রীয় কমিটির সহসভাপতি অ্যাড. স্বপন কুমার
দাস রায়, দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা কমিটির সভাপতি জালাল উদ্দিন, জামালগঞ্জ উপজেলা কমিটির সভাপতি শাহানা আল আজাদ, হাওর বাঁচাও আন্দোলনের কেন্দ্রীয়
কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক একে কুদরত পাশা, যুগ্ম আহ্বায়ক প্রভাষক সাঈদ আহমদ, সদস্য প্রভাষক দোলাল মিয়া, সুনামগঞ্জ সদর উপজেলা কমিটির সাধারণ
সম্পাদক শহীদনুর আহমদ, কবি একে জাকারিয়া, সাংবাদিক হাবিবুল্লাহ হেলালী, সুনামগঞ্জ জেলা ছাত্র ইউনিয়নের সভাপতি আসাদ মনি। এসময় উপস্থিত ছিলেন জেলা
উদীচীর সভাপতি শীলা রায়, হাওর বাঁচাও আন্দোলনের কেন্দ্রীয় কমিটির সহসভাপতি চিত্তরঞ্জন তালুকদার, জেলা কমিটির আহ্বায়ক কবি সুখেন্দু সেন, বিকাশ রঞ্জন চৌধুরী
ভানু, অ্যাড. স্বপন কুমার দাস রায় প্রমুখ। সভা সঞ্চালনা করেন সংগঠনের যুগ্ম সম্পাদক সালেহীন চৌধুরী।
শোকসভায় বক্তারা অ্যাড. বজলুল মজিদ চৌধুরী খসরু’র প্রয়াণে যে শূন্যতা তৈরি হয়েছে তা পূরণ হবার নয় উল্লেখ করে বলেন, ২০১৭সালের হাওরে দুর্যোগের সময় তিনি
বলিষ্ঠ ভূমিকা রাখেন। হাওরাঞ্চলের শোষিত বঞ্চিত মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠায় তিনি সংগ্রাম করেছেন। বক্তারা বলেন, আজকে কৃষক ধানের ন্যায্য মূল্য পায় না। ফরিয়াদের
লুটপাটে কৃষক দিশেহারা। এই অবস্থায় আজকে একটা বলিষ্ঠ নেতৃত্ব হারিয়েছে সুনামগঞ্জবাসি। যা পূরণ হবার নয়।
শোকবার্তা পাঠ করেন জেলা মহিলা পরিষদের সভাপতি গৌরী ভট্টাচার্য্য। পরে অ্যাড. বজলুল মজিদ চৌধুরী খসরু’র ছেলে সৌদ ফারহান চৌধুরী’র হাতে শোকবার্তাটি তুলে দেন সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।