বেড়েছে সবজির দাম

পুলক রাজ
করোনা ভাইরাস মহামারির উর্ধ্বগতির কারণে দেশব্যাপী চলছে লকডাউন। এদিকে গত বুধবার থেকে শুরু হয়েছে মাহে রমজান। এরমধ্যে বাজারে অস্বাভাবিকভাবে দাম বেড়েছে সবজির। সবজির দাম বেড়ে যাওয়ায় বিপাকে পড়েছেন ক্রেতারা। কেজিপ্রতি সবজি ৫ থেকে ৩০ টাকা পর্যন্ত দাম বেড়েছে। সবচেয়ে বেশি দাম বেড়েছে টমেটো, কাঁচা মরিচ, শসা।
সরেজমিনে পৌর শহরের মধ্যবাজার, পূর্ববাজার, জগন্নাথবাড়ী, জেল রোড, ষোলঘর, ওয়েজখালী বাজারসহ বিভিন্ন এলাকায় দেখা যায়, প্রতি কেজি টমেটো ১৫ থেকে ২০ টাকা বিক্রি হচ্ছে। লকডাউনের আগে কেজিপ্রতি ৫ টাকা করে টমেটো বিক্রি হয়েছে। ৭ দিন আগে প্রতি কেজি কাঁচামরিচ ২০ থেকে ২৫ টাকায় বিক্রি হলেও এখন বিক্রি হচ্ছে ৪০ থেকে ৪৫ টাকায়। গত সপ্তাহের তুলনায় ১৫ থেকে ২০ টাকা বেড়েছে বেগুনের দাম। প্রতি কেজি বেগুন ৫৫ থেকে ৬০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।
এছাড়াও কেজিপ্রতি শসা ৩০ থেকে বেড়ে ৮০ টাকা, লুবদা শিম ৩০ থেকে বেড়ে ৪০ টাকা, পেঁপে ৪০ থেকে বেড়ে ৫০ টাকা, ঢেঁরস ২০ থেকে বেড়ে ৪০ টাকা, করলা ৩০ থেকে বেড়ে ৬৫/৭০ টাকা, আলু ২০ থেকে বেড়ে ৩০ টাকা, গাজর ৩০ থেকে বেড়ে ৬০ টাকা, পটল ৬০ থেকে বেড়ে ৮০ টাকা, সিসিন্দা ১৫ থেকে এখন ২৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। এদিকে এলাচি লেবু পাতাকপি, মুলা, নাইল্লা, ডুগি, মিষ্টি লাউ ১০ থেকে ২০ টাকা পর্যন্ত বেড়েছে।
মধ্যবাজার এলাকার ভাসমান সবজি ব্যবসায়ী সোহেল মিয়া বলেন, প্রতিবছরই রমজান এলে এমনিতেই সব কিছুুুর দাম বাড়ে। এ বছরও কিছু কিছু সবজির দাম বেড়েছে। আমরা সাধারণ বিক্রেতা, আমাদের তো কিছু করার থাকে না। আমরা যে জায়গা থেকে কিনে আনি সেই জায়গায় বেশী দামে বিক্রি করে। তাই আমাদেরও বেশি দামে বিক্রি করতে হয়।
জেল রোড সবজি বিক্রেতা আব্দুল কাদির বলেন, করোনা ভাইরাস থেকে বাঁচার জন্য সরকার সারাদেশ লকডাউন দিয়েছে। গাড়ীর ড্রাইভারে লকডাউনের কথা বলে গাড়ী ভাড়া বেশী নেয়। সবজি কিনতে আর গাড়ী ভাড়া দিতে গিয়ে সবজির দাম বেড়ে যায়। আমাদের তখন আর কিছু করার থাকে না, বেশী দামে সবজি বিক্রি করতে হয়।
জগন্নাথবাড়ী সবজি বিক্রেতা আবুল কালাম, আমাদের কিছু করার নাই। আমরা বেশী দামে কিনি তাই বেশী দামে বিক্রি করি।
জেল রোডের ক্রেতা জামালা হোসেন বলেন, সবজির দাম বেড়ে যাওয়ায় আমরা তো বিপদে পড়েছি। সবজি বিক্রেতারা রমজান ও লকডাউনের কথা বলে সবজির দাম বেশী নিচ্ছে। লকডাউন দেওয়ার কারণে রুজি নেই বললেই চলে। এরমধ্যে যদি সব কিছুর দাম বেড়ে যায় তা হলে আমাদের মতো সাধারণ মানুষ কেমন করে বাঁচবে।
জেল রোড এলাকার ক্রেতা সুলেমান রাহমান বলেন, টমেটো লকডাউনের আগে ৫ টাকা কেজি করে কিনেছি, আর এখন কিনতে হয়েছে ১৫ টাকা কেজি করে। প্রায় সব ধরনের সবজির দাম অতিরিক্ত বেড়েছে। প্রশাসনের কোন নিয়ন্ত্রণ নেই বললেই চলে। ব্যবসায়ীরা নিজের মতো করে সবজির দাম রাখছে।
ক্রেতা শামসুল হক বলেন, শসা ১ কেজি ৮০ টাকা করে কিনতে হয়েছে। লেবু, গাজর সহ সব ধরনের সবজির দাম অতিরিক্ত বেড়েছে। এভাবে সব কিছুর দাম বাড়তে থাকলে মানুষ কি খেয়ে থাকবে।