ভারতের বিপক্ষে জয় চায় বাংলাদেশ

সু.খবর ডেস্ক
সেমিফাইনালে আশা বাঁচিয়ে রাখতে শক্তিশালী ভারতকে হারানোর লক্ষ্য নিয়েই আজ মাঠে নামছে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। টি—টোয়েন্টি বিশ্বকাপে সুপার টুয়েলভে নিজেদের চতুর্থ ম্যাচে অ্যাডিলেড ওভালে ভারতের বিপক্ষে এ নিজেদের সেরাটা দিতে প্রস্তুত টাইগাররা। দিবা—রাত্রির ম্যাচটি বাংলাদেশ সময় দুপুর ২টায় শুরু হবে এবং সরাসরি সম্প্রচার করবে গাজী টিভি ও টি স্পোর্টস চ্যানেল।
এ ম্যাচে হেরে গেলে গাণিতিকভাবে সেমিফাইনালের দৌঁড় থেকে বাদ পড়বে বাংলাদেশ। তবে টুর্নামেন্ট শুরুর আগে প্রাথমিকভাবে দুই ম্যাচ জয়ের লক্ষ্য পূরনের পর এবার টাইগারদের চোখ সেমিফাইনালে। ২০০৭ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজের পর টুর্নামেন্টের মূল পর্বে চলতি আসরের আগে কখনোও কোন ম্যাচ জিততে পারেনি বাংলাদেশ। সেক্ষেত্রে এবারের বিশ্বকাপে দু’টি জয় অবশ্যই টাইগারদের জন্য বড় পাওয়া।
নিজেদের প্রথম ম্যাচেই নেদারল্যান্ডসকে ৯ উইকেটে হারিয়ে বিশ্বকাপে জয়ের খড়া কাটে বাংলাদেশের। এর পরের ম্যাচে অবশ্য দক্ষিণ আফ্রিকার কাছে ১০৪ রানের বিশাল ব্যবধানে হেরে মুদ্রার অন্য দিকটি দেখে ফেলে তারা। রান বিবেচনায় যা ছিল নিজেদের টি—টোয়েন্টিতে সবচেয়ে বড় হার। আবার পরের ম্যাচেই ঘুরে দাঁড়ায় বাংলাদেশ। শ্বাসরুদ্ধকর ম্যাচে শেষ বল পর্যন্ত খেলে জিম্বাবুয়েকে ৩ রানে হারায় টাইগাররা।
শেষ বলে জিতলেও রোমাঞ্চকর লড়াইয়ের পর দুর্দান্ত জয়ে মানসিকভাবে চাঙ্গা বাংলাদেশ শিবির। ২০১৫ সালের ওয়ানডে বিশ্বকাপে এই ভেন্যুতেই ইংল্যান্ডকে হারিয়েছিলো টাইগাররা।
মঙ্গলবার বাংলাদেশ অধিনায়ক সাকিব আল হাসান বলেন, ‘কোন শ্বাসরুদ্ধকর ম্যাচে জয় পাওয়াটা সবসময়ই আপনাকে মানসিক প্রশান্তি দিবে। আমরা স্বস্তি বোধ করছি। যদিও ভারত বড় দল। দল হিসেবে আমাদের সেরা ক্রিকেট খেলতে পারলে জয় অসম্ভব নয়।’
তিনি আরও বলেন, ‘বর্তমান স্কোয়াডের মধ্যে কেবল আমি ও তাসকিন এই ভেন্যুতে ২০১৫ বিশ্বকাপের সদস্য ছিলাম। এখানে ইংল্যান্ডকে হারানোর মত ভালো স্মৃতি আছে আমাদের। এটি একটি ভাল স্মৃতি। স্বাভাবিকভাবে এটি আমাদের সাহায্য করবে।’
টি—টোয়েন্টিতে ১১বার মুখোমুখি হয়েছে বাংলাদেশ ও ভারত। এরমধ্যে ১০বার জিতেছে ভারত। ১বার জয় আছে বাংলাদেশের। টি—টোয়েন্টি বিশ্বকাপে তিনবারের দেখায় সবগুলোই জিতেছে ভাত।
২০১৬ বিশ্বকাপে দুই দলের মধ্যকার শেষ ম্যাচটি ছিল ঘটনাবহুল। ব্যাঙ্গালুরুতে অনুষ্ঠিত ম্যাচটিতে মাত্র ১ রানে হেরে যায় বাংলাদেশ। শেষ মুর্হূতে সিনিয়র দুই ব্যাটার মুশফিকুর রহিম এবং মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ বড় শট খেলায় বাংলাদেশের হাত থেকে ম্যাচটি ফসকে যায়।
এরপর ২০১৯ সালে ভারতের বিপক্ষে তাদেরই মাটিতে প্রথম জয়ের স্বাদ পায় বাংলাদেশ। কিন্তু তার আগে বেশিরভাগ সময়ই ভারতের বিপক্ষে কোন ম্যাচে প্রতিদ্বন্দিতাই গড়তে পারেনি টাইগাররা।
ভারতের বিপক্ষে ম্যাচকে সামনে রেখে তাই বাস্তবসম্মত কথাই বলেছেন সাকিব। তার মতে ভারতের বিপক্ষে জিতলে সেটি অঘটন হবে।
সাকিব বলেন, ‘ভারত ফেভারিট দল, এখানে বিশ্বকাপ জিততে এসেছে তারা। আমরা ফেভারিট নই, আমরা এখানে বিশ্বকাপ জিততে আসিনি।’
বিশ্বের এক নম্বর অলরাউন্ডার সাকিব আরও বলেন, ‘আমরা খুব ভালো করেই জানি,ভারতের বিপক্ষে এ ম্যাচ জিতলে এটিকে অঘটন বলা হবে। আমরা আমাদের সেরা ক্রিকেট খেলার চেষ্টা করবো এবং অঘটন ঘটানোর চেষ্টা করবো।’
অন্য দিকে বাংলাদেশকে সমীহ করেই ভারতের প্রধান কোচ রাহুল দ্রাবিড় জানিয়েছেন, টি—টোয়েন্টি খেলায় ফেভারিট বলে কিছু নেই। ক্রিকেটের অন্যতম কিংবদন্তি দ্রাবিড় বলেন, ‘বাংলাদেশের প্রতি আমাদের শ্রদ্ধা রয়েছে। তারা ভালো দল। সংক্ষিপ্ত ভার্সনের ক্রিকেটে কেউই ফেভারিট নয়। ম্যাচের দিন যে দল ভালো খেলবে, তারাই জিতবে।’
তিনি আরও বলেন, ‘তাই দক্ষিণ আফ্রিকা, জিম্বাবুয়ে বা বাংলাদেশকে হালকাভাবে নেয়ার কোন সুযোগ নেই। ম্যাচ জিততে হলে আমাদের সেরা ক্রিকেট খেলতে হবে।’
সব মিলিয়ে ১৪২টি টি—টোয়েন্টি ম্যাচ খেলেছে বাংলাদেশ। সেখানে ৪৯টি ম্যাচে জিতেছে, ৯০টিতে হেরেছে টাইগাররা। বাকি তিনটি ম্যাচ পরিত্যক্ত হয়। এবার ভারতের বিপক্ষে জিতে টি—টোয়েন্টিতে জয়ের হাফ—সেঞ্চুরির স্বাদ নিতে চায় বাংলাদেশ।
সূত্র : বাসস