ভারত, দক্ষিণ আফ্রিকা ও অন্যান্য সদস্যদের কাছ থেকে ছাড়ের প্রস্তাব ট্রিপসের

ব্রজেন্দ্র নবনীত
ভারত, দক্ষিণ আফ্রিকা এবং অন্য আটটি দেশ বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার (ডব্লিউটিও) প্রতি আহ্বান জানিয়েছে যে বাণিজ্য–বিষয়ক মেধাস্বত্ব আইন (ট্রিপস) চুক্তি অনুসারে সীমিত সময়ের জন্য সদস্য দেশগুলিকে কিছু পেটেন্ট এবং অন্যান্য মেধাসম্পদ অধিকার (আইপি) শর্ত থেকে অব্যাহতি দেয়ার জন্য। এর কারণ হলো, যেন মেধাস্বত্ব অধিকারের কারণে ব্যাপকভাবে কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন উৎপাদন এবং চিকিৎসাপ্রাপ্তি সীমাবদ্ধ না হয়। কিছু সদস্য এই প্রস্তাব নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করলেও, ডব্লিউটিওর সদস্যদের একটি বিরাট অংশ এই প্রস্তাবকে সমর্থন করে। বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংস্থা, বহুপক্ষীয় সংস্থা এবং বৈশ্বিক নাগরিক সমাজের সমর্থনও পেয়েছে এই প্রস্তাব।

অস্বাভাবিক সময়ে অনেক অপ্রচলিত ব্যবস্থা নিতে হয়। আমরা এটি দেখেছি সংক্রমণ ঠেকাতে নীতিগত হস্তক্ষেপ হিসেবে সীমিত সময়ের জন্য কঠোর লকডাউনের কার্যকারিতার ক্ষেত্রে। আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক আউটলুকের অক্টোবর ২০২০ সংস্করণে বলছে যে, যদিও প্রত্যাশার তুলনায় খারাপ পরিস্থিতির ঝুঁকি এখনও বড় আকারে রয়েছে। যদি সংক্রমণ বৃদ্ধি পায়, চিকিৎসা এবং ভ্যাকসিনজনিত অগ্রগতি প্রত্যাশার চেয়ে ধীর হয়, বা এগুলিতে সব দেশের সমান প্রবেশাধিকার না থাকে, তবে নতুন সামাজিক দূরত্ব এবং কঠোর লকডাউনে অর্থনৈতিক কার্যকলাপ প্রত্যাশার চেয়ে কম হতে পারে”।

পূর্বাভাসের চেয়ে পরিস্থিতি ভয়াবহ বলে মনে হচ্ছে, আমরা ইতিমধ্যে ২০১৯ সালের পূর্বাভাসের বেসলাইন পরিস্থিতি থেকে ৭ শতাংশ অর্থনৈতিক আউটপুট হারিয়ে ফেলেছি। এর ফলে বৈশ্বিক জিডিপির ৬ ট্রিলিয়ন মার্কিন ডলারেরও বেশি লোকসান হয়েছে। এমনকি বেসলাইন বৈশ্বিক জিডিপিতে ১ শতাংশ উন্নতিও বিশ্বব্যাপী আউটপুটে ৮০০ বিলিয়ন ডলারের বেশি সংযোজন করবে, ছাড়ের কারণে অর্থনীতির একটি ক্ষেত্রের ক্ষতি অবশ্যই কমিয়ে দেবে।

ভ্যাকসিন এবং চিকিৎসায় সময়োপযোগী এবং সাশ্রয়ী মূল্যের প্রবেশাধিকার নিশ্চিত করার জন্য কেবলমাত্র একটি সংকেত অর্থনীতিতে চাহিদা পুনরুদ্ধারের জন্য একটি বড় আত্মবিশ্বাস বৃদ্ধির কাজ করবে। সফল ভ্যাকসিনগুলির আবিষ্কারের সাথে সাথে, দিগন্তের কিছু আশা জাগছে বলে মনে হয়। তবে কীভাবে এগুলিকে বিশ্বের মানুষের কাছে সহজলভ্য এবং সাশ্রয়ী করা যায়? মূল প্রশ্নটি হচ্ছে, সকলের জন্য পর্যাপ্ত কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন থাকবে কি না। এমনকি এখনকার সবচেয়ে আশাবাদী পরিস্থিতিও ২০২১ সালের মধ্যে দরিদ্র দেশগুলির পাশাপাশি ধনী দেশগুলোতেও সংখ্যাগরিষ্ঠ জনগণের জন্য কোভিড-১৯টি ভ্যাকসিন এবং চিকিৎসা নিশ্চিত করতে পারে না। ডব্লিউটিওর সমস্ত সদস্য সম্মত হয়েছে যে বিশ্বব্যাপী ব্যাপক প্রয়োজন মেটাতে ভ্যাকসিন ও চিকিৎসামগ্রীর উৎপাদন ক্ষমতা বাড়ানোর জরুরি প্রয়োজন রয়েছে। ট্রিপস মওকুফ প্রস্তাবটি নিশ্চিত করে যে, এই মেধাস্বত্ব প্রতিবন্ধকতা যাতে উৎপাদন ক্ষমতা বাড়ানোর পথে প্রতিবন্ধক না হয়।

ট্রিপস চুক্তির আওতায় বিদ্যমান নমনীয়তা কেন পর্যাপ্ত নয়:
ট্রিপস চুক্তির আওতায় বিদ্যমান নমনীয়তা পর্যাপ্ত নয় কারণ এগুলি মহামারীকে মাথায় রেখে তৈরি করা হয়নি। একটি নির্দিষ্ট দেশ, ঘটনা এবং নির্দিষ্ট পণ্যে বাধ্যতামূলক লাইসেন্স জারি করা হয়, যেখানে প্রতিটি দেশকে অন্যান্য দেশগুলোর সাথে কঠোর সহযোগিতার মাধ্যমে পৃথক বাধ্যতামূলক লাইসেন্স প্রদান করতে হবে। যেখানে আমরা ট্রিপস নমনীয়তা ব্যবহারে উৎসাহিত করছি, একই সাথে এটি সময়সাপেক্ষ এবং বাস্তবায়নের জন্য জটিল। সুতরাং, কেবল এগুলির ব্যবহার সাশ্রয়ী মূল্যের ভ্যাকসিন এবং চিকিৎসার সময়মত প্রাপ্তি নিশ্চিত করতে পারে না। একইভাবে, আমরা ডব্লিউএইচওর কোভিড ১৯- টেকনোলজি অ্যাক্সেস পুল বা সি-ট্যাপ উদ্যোগের খুব উৎসাহজনক অগ্রগতি দেখিনি, যার জন্য আইওপি, প্রযুক্তি এবং ডেটার স্বেচ্ছা প্রদানকে উৎসাহিত করে যা কোভিড সংক্রান্ত চিকিৎসামগ্রীর উৎপাদন বৃদ্ধি ও বিশ্বব্যাপী বিনিময়ের জন্য প্রয়োজন। স্বেচ্ছাসেবী লাইসেন্স যেখানে রয়েছে সেগুলিও গোপনীয়তায় আবৃত। তাদের শর্তাদি স্বচ্ছ নয়। তাদের ক্ষেত্র নির্দিষ্ট পরিমাণে বা সীমিত দেশগুলির মধ্যে সীমাবদ্ধ যার ফলে সত্যিকারের আন্তর্জাতিক সহযোগিতার চেয়ে জাতীয়তাবাদকে উৎসাহিত করা হয়।
কেন বিদ্যমান বৈশ্বিক সহযোগিতা উদ্যোগের বাইরে যাওয়া প্রয়োজন?

কোভ্যাক্স মেকানিজম এবং অ্যাক্ট-এক্সিলারেটরের মতো বিশ্বব্যাপী সহযোগিতা উদ্যোগগুলি ৭.৮ বিলিয়ন মানুষের ব্যাপক বৈশ্বিক চাহিদা মেটাতে অপ্রতুল। অ্যাক্ট-এ এর লক্ষ্য হলো আগামী বছরের শেষের দিকে ২ বিলিয়ন ডোজ ভ্যাকসিন ক্রয় এবং এগুলিকে বিশ্বব্যাপী ন্যায্যভাবে বিতরণ করা। দুইমাত্রায় নিতে হলে কেবল ১ বিলিয়ন মানুষকে এই টিকা দেয়া যাবে। এর অর্থ হল যদি অ্যাক্ট-এ সম্পূর্ণ অর্থায়িত এবং সফল হয়, যা বর্তমানে নয়, তবে বিশ্বব্যাপী সংখ্যাগরিষ্ঠের জন্য পর্যাপ্ত ভ্যাকসিন থাকবে না।

অতীত অভিজ্ঞতা:
বর্তমান মহামারীর প্রাথমিক কয়েক মাসে আমরা দেখেছি যে যাদের মাস্ক, পিপিই, স্যানিটাইজার, গ্লাভস এবং অন্যান্য প্রয়োজনীয় কোভিড-১৯ সামগ্রীগুলি ব্যবহারের সুযোগ ছিল তারা তাৎক্ষণিক প্রয়োজন ছাড়াই তা ব্যবহার করেছে। ভ্যাকসিনের ক্ষেত্রে এটি হওয়া উচিত নয়। অবশেষে, বিশ্ব কোভিড -১৯ প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র উৎপাদন করতে সক্ষম হয়েছিল কারণ এতে কোনও আইপি বাধা নেই। বর্তমানে আমাদের আইপি অধিকারগুলির একই পুলিং এবং ভ্যাকসিন ও চিকিৎসার উৎপাদন বৃদ্ধির জন্য জ্ঞান প্রয়োজন, যা দুর্ভাগ্যক্রমে এখনো হয়নি, যা মওকুফের প্রয়োজনীয়তার সৃষ্টি করেছে।

এই মহামারীর মতো একটি অস্বাভাবিক পরিস্থিতি একাধিক স্টেকহোল্ডারদের সহযোগিতা একত্রিত করেছে। এটি বিজ্ঞানী, গবেষক, জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ এবং বিশ্ববিদ্যালয়গুলি দ্বারা পরিচালিত জ্ঞান এবং দক্ষতা যা আন্ত:দেশীয় সহযোগিতা এবং প্রচুর পাবলিক ফান্ডিং অর্জন করেছে যা রেকর্ড সময়ে ভ্যাকসিনগুলির আবিষ্কারে সহায়তা করেছে – শুধুমাত্র আইপি নয়!

সামনে এগিয়ে যাওয়া :
ট্রিপ্স ছাড় প্রস্তাব আজ বিশ্বের ব্যতিক্রমী জরুরী জনস্বাস্থ্য অবস্থার একটি নির্ধারিত ও আনুপাতিক প্রতিক্রিয়া। এই ছাড়টি মেরাকেশ চুক্তির নবম ধারা -যার মাধ্যমে ডব্লিউটিও প্রতিষ্ঠিত হয়েছে- তাতে উল্লেখিত রয়েছে। এটি ভ্যাকসিনের সময়মতো প্রাপ্তি এবং সাশ্রয়ী মূল্যের অভাবে কোনো জীবনহানি যেন না হয় তা নিশ্চিত করতে সহায়তা করতে পারে। এই মওকুফ ডব্লিউটিওর বিশ্বাসযোগ্যতা পুনরায় প্রতিষ্ঠিত করবে এবং প্রমাণ করবে যে, বহুপাক্ষিক বাণিজ্য ব্যবস্থা এখনো প্রাসঙ্গিক এবং সংকটের সময়ে সাহায্য করতে সক্ষম। এখন সময় এসেছে ডব্লিউটিও সদস্যদের মানুষের জীবন বাঁচাতে এবং অর্থনীতিকে দ্রুত পুনরুজ্জীবনের পথে ফিরিয়ে আনতে সহায়তার জন্য ছাড়ের দাবিটি গ্রহণ এবং কার্যকর করার।

ভ্যাকসিনগুলি সহজলভ্য করা ছিল বিজ্ঞানের জন্য একটি পরীক্ষা এবং তা সহজপ্রাপ্য এবং সাশ্রয়ী করা হবে মানবতার জন্য একটি পরীক্ষা। ইতিহাস আমাদের “এএএ রেটিং” (এভেইল্যাবিলিটি, এক্সেসিবিলিটি এন্ড এফোরডেবিলিটি) অর্থাৎ কোভিড-১৯ এর ভ্যাকসিন এবং চিকিৎসার উপলব্ধতা, সহজলভ্যতা এবং সাশ্রয়ীকরণের জন্য স্মরণ করা উচিত এবং কেবলমাত্র “এ রেটিং” বা উপলব্ধতার জন্য নয়। আমাদের ভবিষ্যৎপ্রজন্মও এর চেয়ে কম পাওয়ার যোগ্য নয়।

– লেখক: ব্রজেন্দ্র নবনীত, ডব্লিউটিওতে ভারতের স্থায়ী প্রতিনিধি ও দূত।