ভাড়াটিয়া দিয়ে এক শিক্ষক আরেক শিক্ষককে পেটালেন

জগন্নাথপুর অফিস
জগন্নাথপুরে তুচ্ছ বিষয়কে কেন্দ্র করে এক শিক্ষকের ভাড়াটিয়া লোকজন আরেক শিক্ষকের ওপর অতর্কিতভাবে হামলা চালিয়ে মারধর করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।
এ ব্যাপারে বৃহস্পতিবার জগন্নাথপুর থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।
অভিযোগ ও বিভিন্ন সূত্রে জানা যায়, জগন্নাথপুর পৌর এলাকার ইসহাকপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মুকুল চন্দ্র সরকার ও উপজেলার সৈয়দপুর সামছিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বারিন্দ্র চন্দ্র সরকারের মধ্যে নামের বানান লেখা নিয়ে বিরোধ সৃষ্টি হয়। সম্প্রতি শিক্ষক বারিন্দ্র সরকারের ছোট ভাইয়ের সঙ্গে মুকুল সরকারের সবজি কেনা নিয়ে বিরোধ বাধে। এসব বিরোধের জের ধরে গত বুধবার সকালে রিকশাযোগে শিক্ষক বারিন্দ্র সরকার কর্মস্থল সৈয়দপুরে রওয়ানা হলে ভবেরবাজার এলাকায় তাঁর রিকশা আটক করেন মুকুল সরকার। সহকারি শিক্ষক মৃদুল সরকারসহ দুইতিন ব্যক্তির উপস্থিতিতে ভাড়াটিয়া অজ্ঞাতনামা এক যুবক বারিন্দ্র সরকারকে মারধর করে। পরে স্থানীয় লোকজন এগিয়ে এসে পরিস্থিতি শান্ত করেন। এঘটনায় পুলিশ ঘটনাস্থল পরির্দশন করেছে।

সৈয়দপুর সামছিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বারিন্দ্র চন্দ্র সরকার জানান, তুচ্ছ বিষয় নিয়ে শিক্ষক মুকুল সরকার তাঁর ভাড়াটিয়া লোকজন দিয়ে আমার ওপর অতর্কিত হামলা চালিয়ে মারধর করিয়েছেন। এ ব্যাপারে আমি থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছি।
এ বিষয়ে অভিযুক্ত ইসহাকপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মুকুল চন্দ্র সরকার তাঁর বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, আমি হামলার বিষয়ে জানি না।
জগন্নাথপুর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) দ্বীপঙ্কর সরকার বলেন, শিক্ষকের লিখিত অভিযোগ পেয়ে আমরা বিষয়টি তদন্ত করছি।
জগন্নাথপুর উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মানিক চন্দ্র দাস জানান, বিষয়টি শুনেছি। এব্যাপারে পদক্ষেপ নেব।