ভোটের ব্যবধান বাড়ানোর চেষ্টা আ.লীগ প্রার্থীর, জয়ের আশা বিএনপি প্রার্থীরও

স্টাফ রিপোর্টার
আগামীকাল শনিবার সুনামগঞ্জ পৌরসভায় ভোট। নির্বাচনকে সামনে রেখে বৃহস্পতিবার শেষ মুহূর্তের প্রচারণায় ব্যস্ত সময় পার করেছেন মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীরা। কর্মী সমর্থকদের নিয়ে নিজ নিজ প্রার্থীর পক্ষে ভোটারদের মন জয় করতে জোর চেষ্টা করেছেন তাঁরা। আওয়ামীলীগের মনোনীত প্রার্থী নাদের বখ্ত শেষ মূহূর্তে প্রাণপণ চেষ্টা করছেন প্রতিদ্বন্দ্বি বিএনপি প্রার্থীর চেয়ে ভোটের ব্যবধান বাড়াতে। বিএনপি’র মনোনীত প্রার্থী মুর্শেদ আলমের চেষ্টারও কমতি নেই। ইসলামী আন্দোলনের প্রার্থী মোহাম্মদ রহমত উল্লাহ্’এর প্রচারণা চোখে পড়ার মত নয়। আওয়ামীলীগের মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী নাদের বখত শেষদিনও উঠান বৈঠক, কর্মীসভা ও গণসংযোগ করে ব্যস্ত সময় পার করেছেন। বৃহস্পতিবার বেলা ১১টায় নির্বাচনী কর্মীদের নিয়ে সভা, দুপুর ১২টায় শহরের ওয়েজখালীতে সভা, বেলা ২টায় নর্থইস্ট কলেজের ছাত্রছাত্রীদের সাথে মতবিনিময়, রাত ৮ টায় সুরমা মার্কেটে নির্বাচনী সভা করেন। এছাড়াও বিভিন্ন এলাকায় গণসংযোগে অংশ নেন তিনি।
শেষ দিনের কর্মসূচিতে উপস্থিত ছিলেন কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সাখাওয়াত হোসেন সফিক, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহ সভাপতি নুরুল হুদা মুকুট, সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার এম এনামুল কবির ইমন, বীর মুক্তিযোদ্ধা অ্যাডভোকেট আলী আমজাদ, রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. মতিউর রহমান পীর, জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি অ্যাড. চাঁন মিয়া, সাবেক সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. নজরুল ইসলাম, সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান খায়রুল হুদা চপল, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক নোমান বখত পলিন, জেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সভাপতি সুয়েব চৌধুরী, সহ সভাপতি ঝন্টু তালুকদার, পৌর আওয়ামীলীগের সভাপতি বিকাশ রঞ্জন দে বাবুল, শ্রমিক লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রাসেল চৌধুরী, পৌর আওয়ামীলীগের দপ্তর সম্পাদক লিটন সরকার, জেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আসিফ বখত রাদ, সুনামগঞ্জ ব্যসায়ী সমিতির সভাপতি মোহাম্মদ আলী খুশনুর, সাধারণ সম্পাদক জাহেদ আহমদ, সাংগঠনিক সম্পাদক হাবিবুর রহমান হাবিব।
এদিকে বিএনপি মনোনীত প্রার্থী মুর্শেদ আলম পুরাতন বাসস্টেশনে পথসভা করেছেন। পথসভায় জেলা বিএনপি নেতৃবৃন্দ এবং অঙ্গ ও সহযোগি সংগঠনের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।
এছাড়াও বড়পাড়া ও মল্লিকপুর সহ পৌর শহরের বিভিন্ন স্থানে জেলা বিএনপি ও অঙ্গ ও সহযোগি সংগঠনের নেতাকর্মীরা প্রচারণা চালিয়েছেন।
ধানের শীষের শেষ নির্বাচনী পথসভা ও লিফলেট বিতরণ কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ করেন সুনামগঞ্জ জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক নূরুল ইসলাম নূরুল, সহ সভাপতি অ্যাড. মঈনুদ্দীন সোহেল, আতম মিসবাহ্, নাদের আহমেদ, সেলিম উদ্দিন, আবুল মনসুর শওকত, আবুল কালাম আজাদ, যুগ্ম সম্পাদক নূর হোসেন, শোয়ের আহমদ, মুনাজ্জির হোসেন সুজন, জুনাব আলী, সাংগঠনিক সম্পাদক নজরুল ইসলাম, কামরুজ্জামান কামরুল, দপ্তর সম্পাদক জামাল উদ্দিন বাকের, জেলা বিএনপি নেতা রাখাব উদ্দিন, আব্দুর রহিম, আকবর হোসেন, রাকিবুল হাসান দিলু, অশোক তালুকদার, ভাস্কর রায়, আশিকুর রহমান, জাহিদ উদ্দিন জাহিদ, নাসের উজ্জ্বল, মেহেদি হাসান উজ্জ্বল, জেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. কয়েছ, সহ সভাপতি আমরানুল হক রাসেল, রহমান, শামসুদ্দোহা, হাফিজুল ইসলাম রাজু, সাংগঠনিক সম্পাদক কামরুল হাসান রাজু, যুগ্ম সম্পাদক মমিনুল হক কালার চাঁন, স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি শামসুজ্জামান, সাধারণ সম্পাদক মনাজ্জির হোসেন, সহ সভাপতি ইকবাল হোসেন, সোহেল মিয়া, আবুল কাশেম দুলু, সাংগঠনিক সম্পাদক আহাদ জুয়েল, স্বেচ্ছাসেবক দল নেতা তানভীর,ইমন, মহিম উদ্দিন, কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের সহ সাংগঠনিক সম্পাদক রায়হান উদ্দিন, পৌর ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি আজিজুর রহমান সৌরভ, সাবেক সেক্রেটারি শাহ্ ফরহাদ, জেলা ছাত্রদলের আহবায়ক জাহাঙ্গীর আলম, সদস্য সচিব তারেক মিয়া, জেলা ছাত্রদল নেতা আনোয়ার আলম, রমজানুল করিম পাপন, আতাহার চৌধুরী, শাহ্ রাহুল, ছাদিকুর রহমান চৌধুরী, শামসুর রহমান, ওবায়দুর রহমান শাওন, আজগর, শ্রাবণ, সাগর, রিজু, ওমর ফারুক, শিপন, মুন্না প্রমুখ।
প্রসঙ্গত সুনামগঞ্জ পৌরসভায় নির্বাচনে গত প্রায় ৩০ বছর ভোটের প্রতিদ্বন্দ্বিতা হয়েছে দেওয়ান (মরমি কবি হাছন রাজার পরিবার) এবং বখ্ত পরিবার (মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক বীর মুক্তিযোদ্ধা মরহুম হোসেন বখ্ত’এর পরিবার)’এর মধ্যে। শহরবাসী বলে থাকেন এই পৌরসভায় দলের চেয়ে পারিবারিক ইমেজ ভোটে কাজে আসে বেশি। বখ্ত ও দেওয়ান এই দুই পরিবারের নির্বাচনী প্রতিদ্বন্দ্বিতা হয়ে আসছে বিগত ছয় পৌর নির্বাচনেই। এবার সেটি নেই। আওয়ামী লীগের প্রার্থী মরহুম হোসেন বখ্ত’এর ছেলে বর্তমান পৌরসভার মেয়র নাদের বখ্ত। তাঁর সঙ্গে বিগত পৌর নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারী হাছন রাজার প্রপৌত্র দেওয়ান গণিউল সালাদীন এবার ভোটে না লড়ার ওই ভোটেও তাঁর দাবি বেশি বললেন নাদের বখ্ত। গণিউল সালাদীনের মহল্লায় বিপূল সংখ্যক ভোটারের উপস্থিতিতে কর্মীসভা করার কথা জানিয়ে নাদের বখ্ত বললেন, আওয়ামী লীগের দলীয় ভোট, পরিবারের শুভানুধ্যায়ীসহ পৌরসভার সম্মানিত সকল পর্যায়ের ভোটাররাই তাকে এলাকায় এলাকায় নিয়ে ভোট দেবার আশ^াস দিচ্ছেন। তিনি আশা করছেন বিপূল ভোটের ব্যবধানে জয় পাবে নৌকা।
বিএনপি প্রার্থী মুর্শেদ আলমের দাবি সুনামগঞ্জ পৌর এলাকায় বিএনপির ভোট বেশি। কারচুপি, ভোটচুরি না হলে জয় পাবে ধানের শীষ।
সুনামগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনে আগামী ১৬ জানুয়ারি ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন ৪৭ হাজার ১৫ জন ভোটার। এরমধ্যে পুরুষ ভোটার ২৩ হাজার ২৩৮ এবং মহিলা ভোটার ২৩ হাজার ৭৭৭ জন।
নির্বাচনে ২৩ টি কেন্দ্রে ১২৬ বুথে দায়িত্ব পালন করবেন ৪০১ জন ভোট গ্রহণকারী কর্মকর্তা। এরমধ্যে ২৩ জন প্রিজাইডিং অফিসার, সহকারী প্রিজাইডিং অফিসার ১২৬ জন এবং পোলিং অফিসার ২৫২ জন।