মঙ্গলকাটা বাজার, ড্রেনেজ ব্যবস্থা না থাকায় মানুষের ভোগান্তি

আকরাম উদ্দিন
মঙ্গলকাটা বাজারে ড্রেনেজ ব্যবস্থা নেই। এই কারণে সামান্য বৃষ্টিতে বাজারের ৬টি গলির ভেতরে পানি জমে কাদার সৃষ্টি হয়। এতে বাজারে আসা ক্রেতা-বিক্রেতারা মারাত্মক ভোগান্তিতে পড়েন। বাজারে ড্রেনেজ ব্যবস্থার উন্নয়নের দাবি স্থানীয়দের।
সদর উপজেলার জাহাঙ্গীরনগর ইউনিয়নের প্রাচীন ঐতিহ্যবাহী মঙ্গলকাটা বাজার। এই বাজারের ভেতরে পানি নিষ্কাশনে ড্রেনেজ ব্যবস্থা নেই। এই কারণে সামান্য বৃষ্টিপাতেও পানি জমে থাকে গলির ভেতরে। এতে বাজারে আসা মানুষজন চলাফেরা করতে ভোগান্তির শিকার হন। বাজারের ব্যবসায়ীরাও পড়েন নানা সমস্যায়। তাই বাজারের ৬টি গলির ভেতরে ড্রেনেজ ব্যবস্থা উন্নয়ন করার দাবি ক্রেতা-বিক্রিতাসহ সকল শ্রেণী পেশার মানুষের।
বাজারে আসা নৈগাং গ্রামের সুরুপ মিয়া বলেন, আমি প্রতি রবি ও বৃহস্পতিবার মঙ্গলকাটা বাজারে আসি মালামাল কিনে নিতে। প্রায় সময় দেখি বাজারের গলিতে পানি জমে কাদার সৃষ্টি হয়েছে। এতে আমাদের নানা ভোগান্তি হয়।
বাজারে আসা ইসলামপুর গ্রামের আমির আলী বলেন, মঙ্গলকাটা বাজার ঐতিহ্যবাহী ও পুরাতন। এই বাজার থেকে সরকার প্রতি বছর লাখ লাখ টাকা রাজস্ব পায়। কিন্তু সেই তুলনায় বাজারের ভাল ও পরিকল্পিত উন্নয়ন নেই। বাজারের ড্রেনেজ ব্যবস্থার উন্নয়ন জরুরি প্রয়োজন।
বাজারের খুচরা ব্যবসায়ী রহিম উদ্দিন বলেন, বাজারে ড্রেনেজ ব্যবস্থা না থাকায় পানি জমে কাদা হওয়ার সমস্যা লেগেই আছে। তবে বর্ষায় ঢলের পানি থেকে বাঁচাতে বাজার এলাকা উঁচুকরণের প্রয়োজন রয়েছে।
বাজারের ব্যবসায়ী জহির আহমদ বলেন, নানা সমস্যার মধ্যে বাজারের গলিতে পানি জমে থাকা এটি অন্যতম সমস্যা। এসব সমস্যার জরুরি সমাধান প্রয়োজন।
মঙ্গলকাটা বাজার পরিচালনা কমিটির সাধারণ সম্পাদক মো. বুরহান উদ্দিন বলেন, বাজারের কোনো কোনো গলিতে ড্রেনেজ ব্যবস্থা এক সময় ছিল। সেটি এখন নষ্ট হয়ে গেছে। পরিকল্পিতভাবে প্রতিটি গলিতে বড় আকারের ড্রেন নির্মাণের ব্যবস্থা হলে পানি নিষ্কাশন দ্রুত হবে। এই জন্য বরাদ্দের প্রয়োজন।