মানব পাচারকারীদের নির্যাতনে মৃত্যু, হত্যা মামলা দায়ের

জগন্নাথপুর অফিস
জগন্নাথপুর উপজেলার কলকলিয়া ইউনিয়নের শ্রীধরপাশা গ্রামের একওয়ান ইসলামকে (১৯) ইতালি পাঠানোর কথা বলে লিবিয়ায় হত্যার অভিযোগ এনে মামলা দায়ের করা হয়েছে।
সোমবার একওয়ান ইসলামের বাবা তরিকুল ইসলাম বাদী হয়ে ৪ জনের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা দায়ের করেন।
বিষয়টি নিশ্চিত করে জগন্নাথপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মিজানুর রহমান বলেন, মামলার ৪ আসামীর মধ্যে দু’জন প্রবাসে। বাকি দু’জন পলাতক রয়েছে। আসামীদের গ্রেপ্তারে পুলিশের অভিযান অব্যাহত আছে।
একওয়ানের বাবা তরিকুল ইসলাম বলেন, জায়গাজমি বিক্রি করে ১৯ লাখ টাকা দিয়েও ছেলেকে বাঁচাতে পারলাম না। এখন শুধু আমার ছেলের হত্যাকারীদের বিচার চাই।
প্রসঙ্গত, গেল বছরের ১৩ এপ্রিল একই গ্রামের লিবিয়ায় অবস্থানরত দালাল আলী হোসেনের মাধ্যমে ৭ লাখ টাকায় ইতালি পেঁৗছে দেওয়ার চুক্তিতে লিবিয়া যায় একওয়ান। সেখানে পেঁৗছার পর দালাল চক্র তাকে আটক করে অমানবিক নির্যাতন চালায় এবং মাফিয়ার হাত থেকে প্রাণ রক্ষার কথা বলে ২৩ এপ্রিল আরও ৭ লাখ টাকা পাঠায় একওয়ানের পরিবার। এক বছর পর চলতি বছরের ১৫ জুন আবার আরও ৫ লাখ টাকা দিয়ে তাকে ইটালি পাঠানোর চুক্তি হয় দালাল আলী হোসন ও তার পরিবারের সঙ্গে। এর দু’দিন পর একওয়ানের বাবা দালালদের তাঁর ছেলের ব্যাপারে জিজ্ঞাসা করলে তারা জানায়, একওয়ান ১৬ জুন মারা গেছে। তিন মাস পরে গত বৃহস্পতিবার লিবিয়া ও বাংলাদেশ দূতাবাসের সহযোগিতায় একওয়ানের মরদেহ দেশে আসে। পরদিন শুক্রবার বিকেলে সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতাল থেকে ময়নাতদন্তের পর গ্রামের বাড়িতে একওয়ানের মরদেহ দাফন করা হয়।