যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে গ্রামবাসীর মানববন্ধন

ধর্মপাশা প্রতিনিধি
ধর্মপাশা উপজেলার জয়শ্রী ইউনিয়ন যুবলীগের সহ-সভাপতি শাহরিয়ার নাফিজকে জড়িয়ে চন্দ্র সোনারথাল হাওরে ফসলরক্ষা বাঁধ কাটার অভিযোগ করায় একই সংগঠনের সাংগঠনিক সম্পাদক আবুল কাশেমের বিরুদ্ধে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকাল ১১টায় উপজেলা পরিষদ সংলগ্ন সড়কে ওই ইউনিয়নের বাদেহরিপুর গ্রামবাসীর ব্যানারে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। এতে গ্রামবাসীসহ বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষ অংশগ্রহণ করেন।
উপজেলার জয়শ্রী ইউনিয়নের বাদেহরিপুর গ্রামের পেছনে চন্দ্র সোনার থাল হাওরে একটি ফসলরক্ষা বাঁধ রয়েছে। যা গত অর্থ বছরে পানি উন্নয়ন বোর্ডের অধীনে দুটি প্রকল্পের মাধ্যমে পানি প্র্রায় ৩২ লাখ টাকা ব্যয়ে পুনর্নির্মাণ ও সংস্কার করা হয়েছে। গত সোমবার বিকেলে আবুল কাশেম উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে লিখিতভাবে অভিযোগ করেন, শাহরিয়ার নাফিজ স্থানীয় জেলেদের কাছ থেকে আর্থিক সুবিধা নিয়ে ওই বাঁধের তিনটি স্থান কেটে মাছ শিকারের অনুমতি দিয়েছেন। এতে বাঁধটি ক্ষতিগ্রস্থ হওয়ার পাশাপাশি জয়শ্রী-মধ্যনগরের ডুবন্ত সড়কটি ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছে। পরের দিন এ অভিযোগের প্রেক্ষিতে শাহরিয়ার নাফিজকে জড়িয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশিত হয়। তারই প্রতিবাদে বৃহস্পতিবার সকাল ১১টায় বাদেহরিপুর গ্রামবাসী মানববন্ধন কনের। মানববন্ধনে বক্তব্য দেন, শাহরিয়ার নাফিজ, জয়শ্রী ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মো. মোখলেছুর রহমান, সাবেক ইউপি সদস্য শাহজাহান, কৃষক মৌলা মিয়া প্রমুখ।
শাহরিয়ার নাফিজ বলেন, ‘মিথ্যা অভিযোগের ভিত্তিতে সংবাদ প্রকাশ হওয়ায় আমি সামাজিকভাবে হেয়প্রতিপন্ন হয়েছি। আমার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ মিথ্যা, বানোয়াট ও রাজনৈতিকভাবে উদ্দেশ্য প্রণোদিত। আমি এর প্রতিবাদ জানাই।’
আবুল কাশেম বলেন, ‘শাহরিয়ার নাফিজ গত তিন বছর ধরে এমনটি করছে। সরেজমিন তদন্ত করলে প্রকৃত সত্য ঘটনা উদঘাটিত হবে।’
সুনামগঞ্জ পাউবোর উপ-সহকারী প্রকৌশলী মো. ইমরান হোসেন বলেন, ‘বিষয়টি সরেজমিন তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’