শান্তিগঞ্জে তিনস্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা

ইয়াকুব শাহরিয়ার, শান্তিগঞ্জ
শান্তিগঞ্জ উপজেলায়ও বোধন ও ষষ্ঠী তিথিতে দেবীর আগমনের মধ্যদিয়ে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় শারদীয় দুর্গাপূজার আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়েছে। উপজেলার ২২টি পূজা ম-পকে দৃষ্টিনন্দন করে সাজিয়েছেন আয়োজকেরা। উপজেলার ৮ ইউনিয়নের ৭টিতে অনুষ্ঠিত হচ্ছে দুর্গাপূজা। পূজার প্রতিটি ম-পের সামনে প্রবেশদ্বারে স্বাগত তোরণ তৈরি করা সহ নান্দনিক কারুকাজে নিজেদের ম-পের সৌন্দর্য ফুটিয়ে তুলেছেন ম-প কর্তৃপক্ষ।
পূজার আনুষ্ঠানিকতা নিরবিচ্ছন্ন ও কোনো রকমের আপত্তিকর ঘটনা ছাড়া শেষ করতে প্রশাসনের পক্ষ থেকেও নেওয়া হয়েছে তিনস্তরের সর্বোচ্চ নিরাপত্তা ব্যবস্থা। ইতোমধ্যে প্রত্যেক ম-প কর্তৃপক্ষের সাথে কথা বলেছেন শান্তিগঞ্জ থানা পুলিশ। যে কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে কঠোর অবস্থানে থাকবেন পুলিশ প্রশাসন। দায়িত্বরত পুলিশ কর্মকর্তা ছাড়াও সিভিল পোশাকে মাঠে থাকবে প্রশাসনের লোকজন।
উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদ সূত্রে জানা গেছে, শান্তিগঞ্জের ৮ টি ইউনিয়নের ৭ টিতে মোট ২২ ম-পে শারদীয় দুর্গা পূজা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। যা গত বছরের তুলনায় ১টি বেশি। উপজেলার শিমুলবাঁক ইউনিয়নে কোনো ম-পেই পূজা হচ্ছে না। পশ্চিম পাগলা ইউনিয়নে ৫টি ম-পে আয়োজিত হয়েছে দুর্গাপূজা। ৮টি পূজা ম-পে পূজা হচ্ছে জয়কলস ইউনিয়নে, দরগাপাশা ও পূর্ব বীরগাঁও-এ ২ করে মোট ৪ টি, পশ্চিম বীরগাঁও-এ ৩টি এবং পূর্ব পাগলা ও পাথারিয়ায় ১ টি করে মোট ২ টি ম-পে পূজা হচ্ছে।
শান্তিগঞ্জ উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক সুরঞ্জিত চৌধুরী টপ্পা বলেন, আমরা মনে করি এ উৎসব সকলের। উৎসবের ক্ষেত্রে ধর্ম কোনো বাধা হতে পারে না। আমরা সকলের সহযোগিতা কামনা করি।
শান্তিগঞ্জ পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি জ্যোতি ভূষণ তালুকদার ঝন্টু বলেন, আমাদের প্রস্তুতি সম্পন্ন। আইনশৃঙ্খলা বাহিনী আমাদের অনেক সহযোগিতা অতীতে করেছেন। এ বছরও করবেন। আশা করি কোনো বিশৃঙ্খলা হবে না।
শান্তিগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কাজি মুক্তাদির হোসেন বলেন, এ উপজেলা যেনো কোনো আপত্তিকর ঘটনা না ঘটে পুলিশ সে দিকে সতর্ক দৃষ্টি রাখবে। কোনো ধরণের অপরাধ কর্মকা- যেনো কেউ না ঘটাতে পারে পুলিশ আনসার সব সময় ম-পেই অবস্থান করবে। তিনস্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা করা হয়েছে। শান্তিশৃঙ্খলা বজায় রাখতে পুলিশ কঠোর অবস্থান থাকবে।