শেষ মুহুর্তে ভোটের লড়াইয়ে এগিয়ে যারা

আলী আহমদ, জগন্নাথপুর
জগন্নাথপুর উপজেলার সাতটি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের প্রচারণা শেষ হয়েছে গত শুক্রবার রাতে। এখন ভোটগ্রহণের পালা। নির্বাচনের জন্য দায়িত্বে থাকা রির্টানিং অফিসারগণ ইতিমধ্যে নির্বাচনের সকল প্রস্তুুতি গ্রহণ করেছেন। সরেজমিনে ইউনিয়নের বিভিন্ন হাট বাজার ও গ্রাম অঞ্চলঘুরে ভোটারদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, এবার চেয়ারম্যান পদে সাত ইউনিয়নের ৩৭ প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এরমধ্যে ২১ প্রবাসী প্রার্থী রয়েছেন। যে কারণে ভোটের মাঠে টাকার খেলা চলছে।
কলকলিয়া ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে লড়ছেন তিনজন প্রার্থী। এর মধ্যে আওয়ামী লীগের প্রার্থী আলাল হোসেন (নৌকা), স্বতন্ত্র প্রার্থী বিএনপি নেতা রফিক মিয়া (আনারস) ও স্বতন্ত্র প্রার্থী বিএনপি নেতা আব্দুস সোবহান (চশমা) এর মধ্যে ত্রিমুখি লড়াই হবে।
পাটলী ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান সিরাজুল হক এর (আনারস) প্রতীকের সাথে আওয়ামীলীগ মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী আঙ্গুর মিয়ার (নৌকা) প্রতীকের মূল লড়াই হবে। এ ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে আরও চারজন প্রার্থী রয়েছেন।
চিলাউড়া-হলদিপুর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান আরশ মিয়া (চশমা) ও আরেক বিদ্রোহী প্রার্থী শহিদুল ইসলাম বকুল (আনারস) প্রতীকে মূল লড়াই হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। তবে এ ইউনিয়নে ভোটের লড়াইয়ে ফেরার প্রাণপণ চেষ্টা চালাচ্ছেন আওয়ামী লীগের প্রার্থী আব্দুল গফুর নৌকা)। এছাড়া আরও তিনজন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতায় আছেন।
রানীগঞ্জ ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের দলীয় প্রার্থী ছদরুল ইসলাম (নৌকা), বিদ্রোহী প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলাম রানা (আনারস), স্বতন্ত্র প্রার্থী সিরাজুল ইসলাম আশিক (মোটরসাইকেল) ও স্বতন্ত্র প্রার্থী বিএনপি নেতা আমান উদ্দিন আহেমদ লেছু (চশমা) প্রতীকের চতুর্মুখি লড়াই হতে পারে। এছাড়া এ ইউনিয়নে আরও দুই প্রার্থী ভোটে লড়ছেন।
সৈয়দপুরÑশাহারপাড়া ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের দলীয় প্রার্থী আবুল হাসান (নৌকা) ও স্বতন্ত্র প্রার্থী মুকিতুর রহমান (চশমা) প্রতীকের সাথে ভোট লড়াই হবে। এছাড়া এ ইউনিয়নে আরও তিনজন চেয়ারম্যান প্রার্থী রয়েছেন।
আশারকান্দি ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী হয়েছেন ৮ জন। এখানে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী আব্দুস সত্তার (নৌকা), আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী আইয়ুব খান (মোটরসাইকেল) ও লেবু মিয়া’র (চশমা) প্রতীকের মধ্যে মূল লড়াইয়ের সম্ভাবনা রয়েছে।
পাইলগাঁও ইউনিয়নে চেয়ারম্যান প্রার্থী চারজন। এরমধ্যে স্বতন্ত্র প্রার্থী মখলুছ মিয়া (ঘোড়া), আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী সুন্দর উদ্দিন (নৌকা) ও স্বতন্ত্র প্রার্থী ফারুক মিয়া’র (চশমা) প্রতীকে ত্রিমুখি লড়াই হচ্ছে। তবে অপর প্রতিদ্বন্দ্বি স্বতন্ত্র প্রার্থী বিএনপি নেতা দবিরুল ইসলাম (আনারস) প্রতীক নিয়ে ভোটের লড়াইয়ে চেষ্ঠা চালাচ্ছেন।
জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও রিটার্নিং অফিসার মুজিবুর রহমান বলেন, ইতিমধ্যে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের সকল প্রস্তুুতি সম্পন্ন করা হয়েছে। গতকাল কেন্দ্রে কেন্দ্রে ভোটের সরঞ্জাম পাঠানো হয়েছে।
জগন্নাথপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি ইখতিয়ার উদ্দিন চৌধুরী বলেন, প্রতিটি কেন্দ্রে পর্যাপ্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিশ্চিতসহ সার্বক্ষণিক ম্যাজিস্ট্রেট, র‌্যাব, বিজিপি, ডিবি, পুলিশ, আনসারসহ বিভিন্ন স্তরের আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা দায়িত্ব পালন করবেন। প্রতিটি কেন্দ্রই আমরা অধিক ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে চিহিৃত করেছি।