শ্রমিকদের মধ্যে সুরক্ষা সামগ্রী বিতরণ

স্টাফ রিপোর্টার
দীর্ঘদিন পর লকডাউন তুলে নেওয়ায় সারাদেশের ন্যায় সুনামগঞ্জের হাট বাজার, দোকান-পাট-বাসস্টেশনে ছিল মানুষের ব্যাপক ভিড়। জেলায় করোনায় উদ্বেগজনক সংক্রমণ ও মৃত্যু বৃদ্ধির পরও স্বাস্থ্যবিধি মানার প্রবণতা ছিল না। বিশেষ করে বাসস্টেশনের পরিবহন কর্মীদের বেশিরভাগই ছিলেন মাস্কহীন। যাত্রীদের অনেকই স্বাস্থ্যবিধি মানছিলেন না।
এই খবর পেয়ে সুনামগঞ্জ জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী (ভারপ্রাপ্ত) মোহাম্মদ জাকির হোসেন যাত্রী ও পরিবহন শ্রমিকদের মধ্যে মাস্ক ও স্বাস্থ্য সামগ্রী বিতরণ করেছেন। জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নূরুল হুদা মুকুটের সঙ্গে কথা বলে তিনি বেলা আড়াইটায় মাস্ক ও হেক্সাসল নিয়ে বাসস্টেশনে উপস্থিত হন। এসময় তিনি পরিবহন শ্রমিক, যাত্রীসহ বাসস্টেশনে উপস্থিত মাস্কহীন লোকদের মধ্যে মাস্ক বিতরণ করেন। করোনা সংক্রমণ প্রতিরোধে সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার আহ্বান জানান। এসময় জেলা পরিষদের সহকারি প্রকৌশলী প্রণব রায় চৌধুরী, হিসাব রক্ষক বিমল চক্রবর্তী, প্রধান অফিস সহকারি মো. আব্দুল মতিনসহ জেলা পরিষদের কর্মকর্তা-কর্মচারিবৃন্দও এই কর্মসূচিতে অংশ নেন। তারা বাসস্টেশন ঘুরে ঘুরে পরিবহন শ্রমিক, যাত্রীসহ বাসস্টেশনে উপস্থিত অন্যান্য মানুষদেরকেও মাস্ক বিতরণ করেন।
জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) মোহাম্মদ জাকির হোসেন বলেন, সরকার দীর্ঘ লকডাউন তুলে নেওয়ার পর ব্যস্ততা বেড়েছে। আমরা দুপুরে খবর পাই বাসস্টেশনে পরিবহন শ্রমিক-যাত্রীরা স্বাস্থ্যবিধি মানছেন না। এই খবর পেয়ে জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মহোদয়ের সঙ্গে কথা বলে আমরা তিন শতাধিক যাত্রী ও পরিবহন শ্রমিকদের মধ্যে মাস্ক বিতরণ করেছি। তাদেরকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে আহ্বান জানিয়েছি।
সুনামগঞ্জজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নূরুল হুদা মুকুট বলেন, করোনার শুরু থেকেই জেলা পরিষদের উদ্যোগে স্বাস্থ্য সামগ্রহীসহ হতদরিদ্র, লকডাউনে কর্মহীন পরিবারকে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে। আজও আমরা পরিবহন শ্রমিক ও যাত্রীদের মধ্যে মাস্কসহ স্বাস্থ্য সামগ্রী বিতরণ করেছি।