সদর হাসপাতালে সনাকের মতবিনিময়

‘স্বাস্থ্যখাতে চাই-সুশাসন’ শ্লোগানকে সামনে রেখে হাসপাতালে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা তথা সুশাসন প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে স্বাস্থ্য সেবার মান উন্নয়নের লক্ষ্যে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সোমবার দুপুর ১২টায় সদর হাসপাতালের সভাকক্ষে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের সাথে সনাকের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়।
টিআইবি’র অনুপ্রেরণায় গঠিত সচেতন নাগরিক কমিটি (সনাক) সুনামগঞ্জ’র উদ্যোগে সভায় শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন সনাক সদস্য ও স্বাস্থ্য বিষয়ক উপ কমিটির আহ্বায়ক যোগেশ^র দাস।
শুভেচ্ছা বক্তব্যে পর ইয়েস দলনেতা সোহানুর রহমান ও ইয়েস সদস্য এমরান হোসেন সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতাল বিষয়ে সনাক ও ইয়েস’র পর্যবেক্ষণ ও সুপারিশমালা উপস্থাপন করেন। সনাক’র উল্লেখযোগ্য পর্যবেক্ষণ ও সুপারিশসমুহ হলো- হাসপাতালের যাবতীয় তথ্য দৃশ্যমান জায়গায় রাখা ও তথ্যসেবা নিশ্চিত করা (ডিউটি রোস্টার, দৈনন্দিন ঔষধের তালিকা, নারী সেবা সম্পর্কিত তথ্য ইত্যাদি), হাসপাতালে নির্ধারিত সময়ে ডাক্তার, নার্সসহ অন্যান্য স্টাফদের উপস্থিতি নিশ্চিত করা এবং কোন কারণে উপস্থিত হতে না পারলে নির্ধারিত কক্ষের সম্মুখে অনুপস্থিতির বিষয়টি নোটিশ দিয়ে অবহিত করা (এতে রোগী হয়রানী হ্রাস পাবে), চিকিৎসক নার্সদের ডিউটি রোস্টার দৃশ্যমান জায়গায় রাখা, নারী এবং শিশুদের জন্য বিশেষ সেবা সম্পর্কে জনসচেতনতা জন্য এ্ই সম্পর্কিত তথ্যবোর্ড স্থাপন/চার্ট তৈরি বা লিফলেট তৈরি করা, নির্ধারিত সেবামূল্যের অতিরিক্ত ফি: না নেয়া, হাসপাতাল চিকিৎসাসেবা সংক্রান্ত অভিযোগ গ্রহণ ও নিরসনে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা করা।
সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে হাসপাতাল তত্ত্বাবধায়ক (উপ-পরিচালক) ডা. মো. আনিসুর রহমান বলেন, হাসপাতালে ডাক্তার নার্স, পরিচ্ছন্নকমীসহ সকল পর্যায়েই জনবল খুবই কম। ফলে চিকিৎসক নার্সসহ অন্যন্য কর্মচারী, কর্মকর্ত্তাদের প্রচুর ওভারলোড নিয়ে কাজ করতে হয়।
এছাড়াও বক্তব্য রাখেন সনাক সুনামগঞ্জের সাবেক সভাপতি নূরুর রব চৌধুরী ও বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ অধ্যাপক পরিমল কান্তি দে। এসময় অন্যান্যের মধ্যে ডা. মাহবুবুর রহমান (সহকারী পরিচালক), নিভা রানী সুতার ও রুপালী রায় (নার্সিং সুপারভাইজার), সনাক সহ সভাপতি রুনা শাহীন আরা লেইছ, শাহীনা আক্তার (এসএসএন), ইয়েস সদস্যবৃন্দ এবং টিআইবি’র কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
প্রেস বিজ্ঞপ্তি