সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের প্রতিবাদ করায় মিথ্যা মামলা ও প্রাণনাশের হুমকি

জগন্নাথপুর অফিস
জগন্নাথপুরে সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের প্রতিবাদ করায় প্রতিবাদকারীদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা ও প্রাণনাশের হুমকি দেওয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ ওঠেছে। শনিবার দুপুরে পৌরসভার ইসহাকপুর এলাকার বাসিন্দা বদরুল ইসলাম জগন্নাথপুর প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে এমন অভিযোগ করেছেন।
তিনি লিখিত বক্তব্যে বলেন, ইসহাকপুরের বাসিন্দা যুক্তরাজ্য প্রবাসী উস্তার গণি’র সন্ত্রাসী বাহিনীর কর্মকান্ডে শান্ত গ্রাম এখন অশান্ত হয়ে ওঠেছে। তাদের সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের প্রতিবাদ করায় আমি সহ নিরীহ গ্রামবাসীকে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করা হচ্ছে।
বদরুল ইসলাম বলেন, ইসহাকপুর পাবলিক উচ্চ বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির তিনবারের সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছি আামি। সভাপতি থাকাকালীন এলাকার শিক্ষা উন্নয়নের পাশাপাশি বিদ্যালয়ের সার্বিক উন্নয়নে প্রাণপণ চেষ্টা করেছি। দায়িত্ব পালনকালে স্কুল পর্যায়ে বির্তক প্রতিযোগিতায় ইসহাকপুর পাবলিক উচ্চ বিদ্যালয় সারাদেশের মধ্যে রানার্সআপ হওয়ার গৌরব অর্জন করেছে। উপজেলার মধ্যে তিনবার শ্রেষ্ঠ বিদ্যালয় হিসেবে নির্বাচিত হয় বিদ্যালয়টি। এছাড়া বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা ভালো ফলাফল করে আসছে। সাম্প্রতিককালে সুনামধন্য ঐতিহ্যবাহী এ বিদ্যালয়ের দিকে নজর পড়েছে এলাকার ওই সন্ত্রাসী বাহিনীর।
গত ৮ সেপ্টেম্বর ইসহাকপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে গ্রামবাসীর উন্নয়ন সভা চলাকালে উস্তার গণি, শাহ নুরুল করিম, জিল্লুল করিম, খলিলুর রহমান গংদের নেতৃত্বে ওই সভায় হামলা চালিয়ে মিটিং বানচাল করে দেয়া হয়। এতে এলাকাবাসীর মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হলেও সন্ত্রাসীদের ভয়ে কেউ মুখ খুলতে সাহস পাচ্ছেন না। গ্রামবাসীর পক্ষে প্রতিবাদ করায় আমার বিরুদ্ধে সন্ত্রাসীরা অপপ্রচার চালাচ্ছে এবং আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দায়ের করা হয়। এমনকি আমাকে প্রাণনাশের হুমকি দেয়া হচ্ছে।
তিনি বলেন. গত ৫ অক্টোবর আমার বাড়িতে একটি সামাজিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠান থেকে অতিথিরা ফেরার পথে ওই সন্ত্রাসী বাহিনী অবৈধ অস্ত্রে-সস্ত্রে সজ্জিত হয়ে হামলা চালায়। ওই হামলার অংশ নেওয়া অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীদের একটি ভিডিও ফুটেজ একই গ্রামের নিজামুল করিমের বাড়ির সিসি ক্যামেরায় ধরা পড়ে। ওই ভিডিও ফুটেজ ইতিমধ্যে থানা পুলিশে হস্তান্তর করা হয়েছে।
সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন ইসহাকপুর গ্রামের আব্দাল হোসেন লেচু, দিলতাজ মিয়া,রফিকুল করিম, প্রবাসী জিয়াউর রহমান, আব্দুল হাফিজ, ছায়াদ আলী, সমসর উদ্দিন, রায়হান উদ্দিন, নোমান মিয়া, আব্দুল মোমিন, রুবেল মিয়া প্রমুখ।
এবিষয়ে জানতে যুক্তরাজ্যপ্রবাসী উস্তার গণির সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি তাঁর বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ মিথ্যা ও উদ্দেশ্য প্রণোদিত বলে দাবি করেন।