সিলেটে ভারী বৃষ্টিপাত, পাহাড়ি ঢলে বন্যার শঙ্কা

সু.খবর ডেস্ক
বর্ষা মৌসুম শুরু হয়েছে। মৌসুমি বায়ুর প্রভাবে সিলেটে গত বৃহস্পতিবার থেকে ভারী বৃষ্টিপাত হচ্ছে। এতে পাহাড়ি ঢলের আশঙ্কা করা হচ্ছে বন্যার। গত বৃহস্পতিবার সকাল ছয়টা থেকে শুক্রবার সকাল ছয়টা পর্যন্ত সিলেটে ৬৬ দশমিক ৯০ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হয়েছে। শুক্রবার সিলেট আবহাওয়া অধিদপ্তর থেকে এ তথ্য জানা যায়।
সিলেট আবহাওয়া অধিদপ্তরের জ্যেষ্ঠ আবহাওয়াবিদ সাঈদ আহমদ চৌধুরী বলেন, মৌসুমি বায়ু সিলেট অঞ্চলের ওপর দিয়ে প্রবাহিত হওয়ায় ভারী বৃষ্টিপাত হচ্ছে। এই বৃষ্টি আরও দুই থেকে তিন দিন স্থায়ী হবে। এরপরই বর্ষার স্বাভাবিক বৃষ্টিপাত হবে।
গত মাসে ভয়াবহ বন্যার ক্ষতি এখনো কাটিয়ে উঠতে পারেননি সিলেট নগর ও বিভিন্ন উপজেলার বাসিন্দারা। এরই মধ্যে নতুন করে বন্যা পরিস্থিতি দেখা দিলে কঠিন অবস্থায় পড়তে হবে জানিয়েছেন স্থানীয় বাসিন্দারা।
সিলেট পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী আসিফ আহমেদ বলেন, ১২ থেকে ১৪ জুনের মধ্যে ভারতের মেঘালয় ও আসামে বৃষ্টিপাত হতে পারে। এতে সিলেট অঞ্চলে নদ-নদীর পানি বিপৎসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হতে পারে। সে সময় বন্যা পরিস্থিতি দেখা দিতে পারে। মূল চিন্তার কারণ পাহাড়ি ঢল। এরই মধ্যে সিলেটে সম্প্রতি বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত নদ-নদীর বাঁধগুলো মেরামত ও সংস্কারের কাজ করা শুরু হয়েছে। আশা করা হচ্ছে, ১২ থেকে ১৪ জুনের আগেই মেরামত কাজ শেষ হয়ে যাবে।
অধিদপ্তরের আবহাওয়াবিদ মো. বজলুর রশীদ বলেন, সাধারণত ভারতের আসাম ও মেঘালয়ে ভারী বৃষ্টি হলে এর প্রভাবে বাংলাদেশে বন্যা দেখা দেয়। এ মাসের প্রথম দিকে ওই অঞ্চলে ভারী বৃষ্টির সম্ভাবনা আছে। ফলে দেশের কয়েকটি স্থানে স্বল্পমেয়াদি বন্যা হতে পারে।
হাওর ও সীমান্তবর্তী উপজেলার নিম্নাঞ্চলে গত এপ্রিলের শেষ দিকে এক দফা এবং মে মাসের মাঝামাঝি সময়ে দ্বিতীয় দফায় আকস্মিক বন্যা হয়। সিলেট ও সুনামগঞ্জের অন্তত ১৪টি উপজেলা এই হঠাৎ বন্যার শিকার হয়। কৃষি দপ্তরের হিসাব অনুযায়ী, সুনামগঞ্জের বন্যায় প্রায় শতকোটি টাকার ক্ষতি হয়।
সূত্র : প্রথমআলো