সুনামগঞ্জবাসীর দুঃখ-দুর্দশা দূরীকরণে এ্যাকশন প্ল্যান তৈরি করা হবে- প্রতিমন্ত্রী ডা. এনামুর রহমান

ধর্মপাশা প্রতিনিধি
দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী ডা. এনামুর রহমান বলেছেন, ‘সুনামগঞ্জবাসীর দুঃখ-দুর্দশা দূরীকরণে আন্তঃমন্ত্রণালয়ের বৈঠকে একটি এ্যাকশন প্ল্যান তৈরি করা হবে। যাতে সুনামগঞ্জবাসী এ বিপর্যয় কাটিয়ে ঘুরে দাঁড়াতে পারে।’ শনিবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে ধর্মপাশা উপজেলায় সাম্প্রতিক বন্যা পরিস্থিতি পর্যালোচনা ও বন্যা দুর্গতদের পুনর্বাসনের বিষয়ে স্থানীয় প্রশাসন, জনপ্রতিনিধি, সুশীল সমাজের ব্যক্তিবর্গের সাথে মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।
উপমন্ত্রী বলেন, ‘পানি অনেক নেমে গেছে। কিন্তু মানুষের দুর্ভোগ রয়ে গেছে। অনেক ঘরবাড়ি, মজুদকৃত খাবারসহ ঘরের ব্যবহৃত জিনিসপত্র নষ্ট হয়েছে। তাই এখানকার মানুষের দাবি আমরা যেন মানবিক সহায়তা কার্যক্রম চালিয়ে যাই। আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি নগদ অর্থ, চাল এবং শুকনো খাবার বিতরণ কার্যক্রম আরও দুই সপ্তাহ চালিয়ে যাবো।’
বন্যা দুর্গতের পুনর্বাসনের ব্যাপারে উপমন্ত্রী বলেন, ‘ক্ষতিগ্রস্ত প্রতিটি পরিবারকে পুনর্বাসনের জন্য পর্যাপ্ত পরিমাণ টিন ও নগদ টাকা দেওয়া হবে। মাটি ও এলজিইডির ক্ষতিগ্রস্ত রাস্তা মেরামত করার ব্যাপারে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ গ্রহণ করা হবে।’
ধর্মপাশা উপজেলার পাইকুরাটি ইউনিয়নের নওধার গ্রামে সুনামগঞ্জ-১ আসনের এমপি মোয়াজ্জেম হোসেন রতনের বাসভবনে উপজেলা পরিষদ ও প্রশাসনের উদ্যোগে আয়োজিত এ মতবিনিময় সভায় অন্যান্যের মাঝে বক্তব্য দেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সভাপতি এবিএম তাজুল ইসলাম এমপি, সুনামগঞ্জ-১ আসনের এমপি মোয়াজ্জেম হোসেন রতন, ফরিদপুর-৪ আসনের এমপি মজিবুর রহমান চৌধুরী, সুনামগঞ্জ-৫ আসনের এমপি মুহিবুর রহমান মানিক, সুনামগঞ্জ পৌরসভার মেয়র নাদের বখত, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মুনতাসির হাসান, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শামীম আহমেদ বিলকিস, জয়শ্রী ইউপি চেয়ারম্যান সঞ্জয় রায় চৌধুরী প্রমুখ। বক্তারা তাঁদের বক্তব্যে বন্যা দুর্গতদের পুনর্বাসনের বিষয়ে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ মতামত তুলে ধরে বক্তব্য দেন। পরে উপমন্ত্রী ধর্মপাশা, মধ্যনগর, তাহিরপুর ও জামালগঞ্জ উপজেলার বন্যা দুর্গত এলাকা পরিদর্শন ও বিভিন্ন গ্রামে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করেন।