সুনামগঞ্জ সরকারি কলেজ ছাত্রাবাস নির্মাণে সম্মিলিত ভূমিকা চাই

অবস্থাদৃষ্টে মনে হয় সুনামগঞ্জ সরকারি কলেজের কোনো ছেলে শিক্ষার্থীর আবাসন ব্যবস্থার চাহিদা নেই। কারণ একসময়ে যে কলেজের দুইটি ছাত্রাবাস ছিলো, এর একটিকে এখন ছাত্রীবাসে রূপান্তরিত করা হয়েছে এবং অন্যটি জরাজীর্ণ অবস্থায় পরিত্যক্ত। কলেজের মোট শিক্ষার্থী সংখ্যা ১০ হাজার। এর কতজন ছাত্র ও কতজন ছাত্রী সে পরিসংখ্যান আপাতত আমাদের হাতে নেই। তবে অনুমান করা যেতে পারে অর্ধেকের কিছু কম-বেশি হতে পারে ছাত্র সংখ্যা। এই সংখ্যা ৫ হাজারের কাছাকাছি। এতো বিশাল সংখ্যক ছাত্র শিক্ষার্থী প্রত্যেকের শহরে নিজস্ব আবাসনের সুযোগ রয়েছে এটা ভাবা অমূলক। জেলার এই প্রধান বিদ্যাপীঠে পড়তে আসেন পুরো জেলার শিক্ষার্থীরা। এদের অধিকাংশেরই নেই সুনামগঞ্জ শহরে থাকার মতো নিজস্ব ব্যবস্থা। তাছাড়া শিক্ষার্থীদের একটি বড় অংশের অভিভাবকরা আর্থিকভাবে অস্বচ্ছল। শহরে এসে বাসা ভাড়া নিয়ে বা ম্যাচে থেকে নিয়মিত ক্লাস অনুসরণ করা অনেকের পক্ষেই সম্ভব হয় না। তাই অনেক শিক্ষার্থী উচ্চশিক্ষার স্বপ্ন নিয়ে কলেজে ভর্তি হলেও শুধু থাকা-খাওয়ার ব্যবস্থার অভাবে নিয়মিত ক্লাস করার সুযোগ নিতে পারেন না। ফলে কলেজে শিক্ষার্থী উপস্থিতি অনেক কম থাকে পুরো বছরই। অথচ মানসম্মত শিক্ষা নিশ্চিত করতে চাইলে শিক্ষার্থীদের নিয়মিত ক্লাসে উপস্থিত থাকা গুরুত্বপূর্ণ। কোনো ক্লাস না করে কেবল নোট-গাইডের উপর নির্ভর করে যেসব শিক্ষার্থী অনার্স বা মাস্টার্স পাস করে বের হন তাদের শিক্ষার মান নিয়ে সন্দেহ থেকেই যায়। এরা কর্মজীবনের প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষায় তেমন করে সফল হতে পারেন না। একটি উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষা প্রদান কাজে এমন দুরবস্থা কখনও কারও কাম্য হতে পারে না।
কলেজের ছাত্রাবাস নিয়ে দৈনিক সুনামগঞ্জের খবরে গত কয়েক বছরে বহু সংবাদ ও সম্পাদকীয় মন্তব্য প্রকাশিত হয়েছে। কিন্তু এসবে যে কোনো কাজ হয় না তা তো বেশ বুঝা যাচ্ছেই। কলেজ কর্তৃপক্ষ কেবল চিঠি দিয়েই নিজেদের কর্তব্য শেষ ভাবেন। অথচ এজন্য দরকার দায়িত্বশীল কর্তৃপক্ষের সাথে উপযুক্ত সমন্বয় সাধন। আজকালের যুগ হলো যে যত বেশি সমন্বয় ও যোগাযোগ রাখতে পারেন তিনি তত বেশি সুযোগ সুবিধা আদায় করতে পারেন। সম্ভবত সমন্বয়ের জায়গায় কিছুটা ঘাটতি রয়ে গেছে। কলেজের ছাত্র সংগঠনগুলো কী করে তাও আমাদের বোধগম্য নয়। কলেজে যে কোনো ছাত্রাবাস নেই সে নিয়ে কোনো ছাত্র সংগঠনের তৎপরতার খবর আমরা জানি না। অথচ শিক্ষাবান্ধব ছাত্র রাজনীতি চালু থাকলে সরকারি কলেজে এই ছাত্রাবাস নিয়ে এতোদিনে ছাত্র সংগঠনগুলো জোর তৎপরতা চালাত।
ছাত্রাবাস যে কেবল ছাত্রদের আবাসিক সমস্যারই সমাধান করে তা না। ছাত্রাবাসে অনেক শিক্ষার্থী একত্রে বসবাসের কারণে পড়াশোনারও সুবিধা হয়। গড়ে উঠে একটি সামাজিক বলয়। বিভিন্ন সামাজিক কর্মকা-ে ভূমিকার রাখার সুযোগ তৈরি হয়। আর এসব কর্মকা-ের মধ্য দিয়ে গড়ে উঠে উপযুক্ত সামাজিক নেতৃত্ব। কিন্তু আজ যেন সকলেই বিচ্ছিন্ন থাকতে চান। যৌথতায় অজানা ভয়। এই ভয় কাটাতে হবে। একটি মানসম্মত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান হিসাবে সুনামগঞ্জ সরকারি কলেজকে দেখতে চাইলে শিক্ষার্থী, শিক্ষক ও সুনামগঞ্জের দায়িত্বশীল মহলকে আজ কলেজে ছাত্রাবাস নির্মাণের দাবির সাথে একমত হয়ে সম্মিলিতভাবে ভূমিকা রাখতে হবে। সকলে চেষ্টা করলে কোনো কাজই অসাধ্য নয়।
প্রান্তিক এলাকা ও পরিবারের শিক্ষার্থীদের যথাযথ শিক্ষা দান ও গ্রহণের মহান আকাক্সক্ষাকে পূরণ করতে অবিলম্বে সুনামগঞ্জ সরকারি কলেজে ছাত্রাবাস নির্মাণের জরুরি ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য আমরা উচ্চ শিক্ষা প্রশাসনসহ স্থানীয় দায়িত্বশীলদের অনুরোধ জানাই।