সৌরভ ছড়িয়ে যাচ্ছেন জীবনভর

অ্যাডভোকেট এনাম আহমেদ
সৌরভ ভূষণ দেব (কুমার সৌরভ) সম্প্রতি বিআরডিবির কর্মকর্তা হিসেবে চাকুরী জীবন থেকে অবসর গ্রহণ করেছেন। কর্মজীবনে তিনি নীতি নিষ্ঠ ও মেধাবী কর্মকর্তা হিসেবে সুপরিচিত ছিলেন। সর্বত্র সৌরভ ছড়িয়ে অবসরকালীন সময় রাঙিয়ে তোলার আয়োজনে মত্ত এখন। তিনি একাধারে কবি ও গুণী লেখক। তাঁর এই অবসরকালীন সময়কে বর্ণিল করতে উদ্যোগী হয়েছেন শহরের সচেতন লেখক, গবেষক ও প্রগতিবাদীরা। সাহিত্য-সংস্কৃতিতে ক্রমশ: পিছিয়ে পড়া সুনামগঞ্জের সাহিত্য অঙ্গণকে আবারো মুখরিত করার প্রত্যাশা সবার। এতে কুমার সৌরভ অনুঘটকের ভূমিকা পালন করবেন বলে বিশ্বাস সুধী মহলের।
কর্মজীবন থেকে অবসর নিয়ে সমাজ বিপ্লবে ঝাঁপিয়ে পড়ার প্রাক্কালে তাঁকে সংবর্ধনার আয়োজন করেছে মুক্তিযুদ্ধ চর্চা ও গবেষণা কেন্দ্র। আজ সোমবার সন্ধ্যা ৭টায় শহীদ মুক্তিযোদ্ধা জগৎজ্যোতি পাবলিক লাইব্রেরী মিলনায়তনে এই সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত হবে।
সৌরভ ভূষণ দেব (কুমার সৌরভ) সরকারি চাকুরীর পাশাপাশি করেছেন লেখালেখি, যুক্ত ছিলেন বিভিন্ন সংগঠন ও সামাজিক কাজেও। মানুষ হিসেবেও তিনি অসাধারণ। অন্যকে প্রভাবিত করার সন্মোহিনী ক্ষমতা আছে তাঁর। ইতিবাচক চিন্তা-ভাবনা, মানসিক দৃঢ়তা, যে কোন বিষয়কে গুছিয়ে পরিপাটি ভাবে উপস্থাপনে তাঁর জুড়ি নেই। সহজ, সরল ও সাদামাটা জীবন যাপন অভ্যস্ত তিনি। কর্মজীবন থেকে অবসরে যাওয়ার পর এই সময়টা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এই সময়টা তিনি মানুষের চিন্তা চেতনার ইতিবাচক পরিবর্তনে কাজে লাগাতে পারবেন। এই প্রত্যাশা সুনামগঞ্জ সচেতন মহলের। সমাজ পরিবর্তনের কাজের পাশাপাশি তাঁর ক্ষুরধার লেখনি পাঠক মহলে আরও বেশি সমাদৃত হবে। সরকারি কর্মকর্তা থেকে অবসরে যাওয়ায় এখন সরাসরি সব অনিয়ম, দুর্নীতি ইত্যাদি সমাজ বিরোধী কর্মকাণ্ডে আরও বেশি প্রতিবাদ মুখর হয়ে অবস্থান নিতে পারবেন।
ব্যক্তিজীবনে তিনি দুই সন্তানের জনক, তাঁরা দুই জনই স্ব স্ব ক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠিত। তাঁর স্ত্রী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা।
এই অনুষ্ঠানকে সফল করতে সকলকে উপস্থিত থাকার আমন্ত্রণ জানিয়েছেন মুক্তিযুদ্ধ চর্চা ও গবেষণা কেন্দ্রের সদস্যবৃন্দ।
লেখক : সহকারী সম্পাদক, দৈনিক সুনামগঞ্জের খবর।