‘স্বাধীনতা বিরোধীরা দেশকে অস্থিতিশীল করার পায়তারা করছে’

লন্ডন প্রতিনিধি
স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তি ও জাতির জনকের জন্মশত বার্ষিকীতে কয়েকটি উগ্রবাদি সংগঠনের ব্যানারে শানে রিসালত সম্মেলনের নামে দেশকে অস্থিতিশীল করার পায়তারা করছে। এদের ব্যাপারে সকলকে সজাগ থাকতে হবে।
২১ মার্চ লন্ডন থেকে যুদ্ধাপরাধ বিচারমঞ্চ আয়োজিত ভার্চুয়াল আলোচনায় আলোচকবৃন্দ এই আহবান জানান। আলোচকবৃন্দ বলেন, যারা ধর্মের দোহাই তোলে দেশে অরাজকতা সৃষ্টির পায়তারা করছে তারা স্বাধীনতা বিরোধী। এই স্বাধীনতা বিরোধী উগ্রবাদি গোষ্ঠি বাংলাদেশকে আফগানিস্তানে পরিণত করতে চাইছে। এরা ১৯৭১ সালে আলবদর, রাজাকার ও আলসামস বাহিনী গঠন করে ১৯৭১ সালে পাকিস্তানীদের সাথে নিয়ে গণহত্যা চালিয়ে ছিল।
লন্ডন সময় বিকেল ৪টায় এলএনটুয়েন্টি ফোরে রূমী হক’র সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত ভার্চ্যুয়াল আলোচনায় অংশ নেন যুদ্ধাপরাধার বিচার মঞ্চের চেয়ারপার্সন মতিয়ার চৌধুরী, একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মুল কমিটির কেন্দ্রীয় সদস্য আনসার আহমেদ উল্লাহ, অতিথি হিসেবে যোগদেন বাংলাদেশ থেকে শহীদ সন্তান ড. নুজহাত চৌধুরী, যুদ্ধাপরাধ ট্রাইবুন্যালের সাবেক প্রসিকিউটর ব্যরিস্টার তুরিন আফরোজ, লন্ডনস্থ বাংলাদেশ মিশনের মিনিস্টার প্রেস আশিকুননবী চৌধুরী, একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মুল কমিটি সুইডেন চাপ্টারের সেক্রেটারী তরুন কান্তি চৌধুরী, শিক্ষাবিদ অপু চৌধুরী, যুদ্ধাপরাধ বিচার মঞ্চের কেন্দ্রীয় প্রেসিডেন্ট খালেদুর রহমান শাকিল।
সুনামগঞ্জের হিন্দু সম্প্রদায়ের বাড়ি ঘরে হামলা-লুটপাট ও নারীদের নির্যাতন করার জন্যে হেফাজতে ইসলামকে দায়ী করে বক্তরা বলেন, হেফাজতের কেন্দ্রীয় আন্তর্জাতিক বিয়ষক সম্পাদক মৌলানা শোয়াইব আহমদ শানে রিসালতের নামে তার নিজ এলাকা দিরাইয়ে এই সম্মেলনের আয়োজন করেন। সম্মেলনের পর পরই জাতির জনকের জন্মদিনে পরিকল্পিতভাবে এই হামলার চালানো হয়। যার প্রমাণ তার ফেইসবুক আইডি। আলোচকবৃন্দ হেফাজতের সকল কার্যক্রম বন্ধ ও শাল্লার নেয়াগাঁও গ্রামে হিন্দু সম্প্রদায়ের উপর হামলাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান।