হাওরে অবাধে চলছে পোনা ও ডিমওয়ালা মাছ নিধন

এম. এ রাজ্জাক, তাহিরপুর
তাহিরপুর উপজেলার বিভিন্ন হাওরে নিষিদ্ধ কোনা জাল দিয়ে জেলেরা অবাধে দেশীয় প্রজাতির পোনা ও ডিমওয়ালা মা মাছ শিকার করছে। বাজারগুলোতে প্রকাশ্যে পোনা এবং ডিমওয়ালা মা মাছ বিক্রি হলেও এসব বন্ধে কার্যকর কোন পদক্ষেপ নিতে দেখা যাচ্ছে না সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে।
উপজেলা মৎস্য দপ্তর সূত্রে জানা যায়, পর্যাপ্ত পরিমান অর্থ বরাদ্দ না থাকায় পোনা ও ডিমওয়ালা মা মাছ নিধন বন্ধে নিয়মিত অভিযান চালানো সম্ভব হচ্ছে না। মশারি ও কোনা জাল দিয়ে মাছ শিকার করায় মাছের উৎপাদন কিছুটা ব্যাহত হচ্ছে। এ উপজেলায় নিবন্ধিত জেলের সংখ্যা ৭ হাজার ৯শ ৬৯ জন। এ ছাড়াও প্রায় ১০ হাজার ১শ জন মৌসুমি জেলে রয়েছে।
সোমবার কয়েকটি হাওর ঘুরে দেখা গেছে, সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত নিষিদ্ধ কারেন্ট জাল, মশারী জাল, বেড় জাল, কোনা জাল ও প্লাস্টিকের খাঁচা সহ নানা উপকরণ দিয়ে ডিমওয়ালা মা মাছ ও পোন শিকার করছে এক শ্রেণির জেলেরা। শৈল, টাকি, টেংরা, বাইম, বোয়াল, রুই, কার্গো, কাতলা, গজার, পুঁটি এমন কি মৎস্য দপ্তর থেকে উন্মুক্ত জলাশয়ে অবমুক্ত করা বিভিন্ন প্রজাতির দেশীয় মাছের পোনা নিধন করছে মৎস্য শিকারিরা।
মাটিয়ান হাওরপাড়ের সুজন নামে একজন জানান, সম্প্রতি মাটিয়ান, শনি ও টাঙ্গুয়া হাওর সহ কয়েকটি হাওরে মশারি ও কোণা জাল দিয়ে জেলেরা পোনা ও ডিমওয়ালা মা মাছ ধরছে। তাঁদের জালে দেশীয় নানা প্রজাতির মাছের পোনা ধরা পড়ছে। ফলে স্থানীয় বাজারগুলোতে অন্যান্য বছরের তুলনায় এ বছর দেশীয় মাছের আকাল পড়েছে।
তাহিরপুর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান করুণা সিন্ধু চৌধুরী বাবুল বলেন, হাওরে শুধু অভিযান চালিয়ে এ জালের ব্যবহার বন্ধ করা যাবে না। সরকারিভাবে তাদের জন্য এ মৌসুমে বিকল্প কর্মসংস্থান সৃষ্টিসহ আর্থিক সহায়তার উদ্যোগ নেয়া প্রয়োজন।
উপজেলা মৎস্য দপ্তর কর্মকর্তা সারোয়ার হোসেন বলেন, হাওরগুলোতে নিয়মিত অভিযান চালানো হচ্ছে। তবে এতো বড় বিশাল হাওরে স্বল্প পরিসর লোকবল নিয়ে কোনা জাল দিয়ে পোনা ও ডিমওয়ালা মা মাছ নিধন রোধ করা সম্ভব হচ্ছে না।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. রায়হান কবির বলেন, মশারি বা কোনা জাল দিয়ে পোনা মাছ শিকার করা সম্পূর্ণভাবে বেআইনি। হাওরে পোনা মাছ নিধন বন্ধে মাঝে মধ্যে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হচ্ছে। গত সপ্তাহে হাওরে অভিযান চালিয়ে ৪ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। হাওরগুলোতে পোনা মাছ নিধন বন্ধে অভিযান অব্যাহত থাকবে।