হামলায় ইউপি চেয়ারম্যান আহত, থানায় অভিযোগ

জামালগঞ্জ প্রতিনিধি
জামালগঞ্জে ফুটবল খেলাকে কেন্দ্র করে হামলার ঘটনা ঘটেছে। গত মঙ্গলবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় বেহেলী ইউনিয়নের হরিনগর গ্রামের পাশে রাজাপুর ব্রিজসংলগ্ন সড়কে এ হামলার ঘটনাটি ঘটে। এতে বেহেলী ইউপি চেয়ারম্যান অসীম তালুকদার ও বেহেলী আলীপুর গ্রামের ছফির উদ্দিনের ছেলে মোটরসাইকেল চালক এরশাদ মিয়া গুরুতর আহত হন। আহত ইউপি চেয়ারম্যানকে উন্নত চিকিৎসার জন্য সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে এবং অপর আহত এরশাদ মিয়া জামালগঞ্জ সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন। এ ঘটনায় বেহেলী ইউপি চেয়ারম্যান অসীম তালুকদার বাদী হয়ে জামালগঞ্জ থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন। এতে ২১ জনসহ অজ্ঞাত আরও ২০-২২ জনকে বিবাদী করা হয়েছে।
অভিযুক্তরা হলেন হরিনগর গ্রামের মৃত আব্দুল হাসিমের ছেলে আবুল হুসেন (৫৫), চাঁন মিয়ার ছেলে জালাল মিয়া (৫৭) ও আসাবুদ্দিন (৩০), আবুল হোসেনের ছেলে আতাবুর রহমান (২৪), মৃত মনাফ মিয়ার ছেলে আলী নূর (৬০), মৃত কাঁচা মিয়ার ছেলে শফিক মিয়া (৪০), রজব আলীর ছেলে আলী রাজা (৩০), মৃত আব্দুর রহমানের ছেলে এরশাদ আলী (৫৮) ও রাশিদ আলী (৫৬), এরশাদ আলীর ছেলে আয়ুব খান (২৪), রজব আলীর ছেলে সালমান শাহ (২৩) ও বাদশা মিয়া (২৮), রাশিদ আলীর ছেলে করম আলী (২৫), নূর আলীর ছেলে ছুরত জামাল (৩২) ও কারি আলম (৩৩), শামছুল হকের ছেলে রুবেল (৩১), এরশাদ আলীর ছেলে মোছা আলী (৩৫), তাজুদ আলীর ছেলে পরান (৩৩), মৃত তোতা মিয়ার ছেলে ফাজিল (৩৫) ও জাহাঙ্গীর (৫৫), আজির রহমানের ছেলে বাছিদসহ অজ্ঞাত আরও ২০-২২ জন।
অভিযোগে জানা যায়, বেহেলী ইউপি চেয়ারম্যান অসীম তালুকদার গত মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৭টায় তার মোটরসাইকেল চালক এরশাদ মিয়াকে নিয়ে ইসলামপুর রওয়ানা দেন। রাজাপুর ব্রিজের উত্তর পাশে যেতেই পূর্ব থেকে ওঁৎ পেতে থাকা বিবাদীরা দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে তাদের উপর হামলে পড়ে। একপর্যায়ে চেয়ারম্যান অসীম তালুকদার তার নিজের পরিচয় দিলেও বিবাদীরা এলোপাথারি আক্রমণ শুরু করে। এতে বাদীসহ মোটরসাইকেল চালক গুরুতর আহত হন। পরে তাদের সুরচিৎকারে আশপাশের লোকজন এগিয়ে আসলে বিবাদীরা হুমকি দিয়ে ঘটনাস্থল ত্যাগ করে। এমতাবস্থায় ঘটনাস্থলে আসা লোকজন গুরুতর আহত চেয়ারম্যান ও মোটরসাইকেল চালককে নিয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসেন। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় অসীম চেয়ারম্যানের অবনতি হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক উন্নত চিকিৎসার জন্য গতকাল বৃহস্পতিবার সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করেন। বর্তমানে তিনি সিলেটে চিকিৎসাধীন আছেন।
এ ব্যাপারে জামালগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ সাইফুল আলম বলেন, অভিযোগ পেয়েছি, তদন্তপূর্বক আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।