২১ ইউপিতে ১২৩১ প্রার্থীর মনোনয়নপত্র দাখিল

সু.খবর রিপোর্ট
জেলার জগন্নাথপুর, দিরাই, বিশ্বম্ভরপুরের ২১ ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন ১২৩১ প্রার্থী। চেয়ারম্যান পদে ১৩২ জন। এরমধ্যে জগন্নাথপুরের ৭ ইউনিয়নে ৪০ জন, দিরাই উপজেলার ৯ ইউনিয়নে ৬০ জন এবং বিশ্বম্ভরপুর উপজেলার ৫ ইউনিয়নে ৩২ জন মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন।
সাধারণ সদস্য পদে মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন ৮৩৫ জন। এরমধ্যে জগন্নাথপুরের ৭ ইউনিয়নে ২৪০ জন, দিরাই উপজেলার ৯ ইউনিয়নে ৩৬৭ জন এবং বিশ্বম্ভরপুর উপজেলার ৫ ইউনিয়নে ২২৮ জন মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন।
সংরক্ষিত পদে নারী সদস্য পদে মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন ২৬৪ জন। এরমধ্যে জগন্নাথপুরের ৭ ইউনিয়নে ৮৯ জন, দিরাই উপজেলার ৯ ইউনিয়নে ১০৯ জন এবং বিশ্বম্ভরপুর উপজেলার ৫ ইউনিয়নে ৬৬ জন মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন।
জগন্নাথপুর
জগন্নাথপুরের সাত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে মনোনয়ন দাখিল শেষ হয়েছে। বৃহস্পতিবার মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ দিন সকাল থেকে বিকেল পাঁচটা পর্যন্ত উপজেলা সদরে দায়িত্বরত সাত ইউনিয়নের তিন রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ে চেয়ারম্যান পদে ৪০ জন, সাধারণ সদস্য পদে জন ২৪০ ও সংরক্ষিত পদে নারী সদস্য ৮৯ জন মনোনয়ন জমা দেন।
চেয়ারম্যান পদে কলকলিয়া ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের দলীয় প্রার্থী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক আলাল হোসেন রানা, স্বতন্ত্র প্রার্থী যুক্তরাজ্য প্রবাসী বিএনপি নেতা রফিক আহমদ, স্বতন্ত্র প্রার্থী উপজেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুস সোবহান। পাটলী ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান সিরাজুল হক, আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী আওয়ামী লীগ নেতা সাবেক চেয়ারম্যান আঙ্গুর মিয়া, আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী যুক্তরাজ্য প্রবাসী আব্দুল হাই আজাদ, স্বতন্ত্র প্রার্থী এনামুল ইসলাম, যুক্তরাজ্যপ্রবাসী আতিকুর রহমান আতিক, স্বতন্ত্র প্রার্থী নবাব সলিমুল্লাহ। চিলাউড়া হলদিপুর ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী আরশ মিয়া, আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনীত ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল গফুর, আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী শহিদুল ইসলাম বকুল, আব্দুল মোমিন, স্বতন্ত্র প্রার্থী ইলিয়াস মিয়া, স্বতন্ত্র প্রার্থী মুজিবুর রহমান। রানীগঞ্জ ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী ইউনিয়ন শহিদুল ইসলাম রানা, আওয়ামী লীগের প্রার্থী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ছদরুল ইসলাম, স্বতন্ত্র প্রার্থী সাবেক চেয়ারম্যান মজলুল হক, স্বতন্ত্র প্রার্থী বিএনপি নেতা আমান উল্লাহ লেছু, স্বতন্ত্র প্রার্থী যুক্তরাজ্য প্রবাসী এম. সিরাজুল ইসলাম আশিক স্বতন্ত্র প্রার্থী য়ুক্তরাজ্যপ্রবাসী ছালিক মিয়া। সৈয়দপুর-শাহারপাড়া ইউনিয়নের আওয়ামী লীগের দলীয় প্রার্থী সাবেক চেয়ারম্যান আবুল হাসান, স্বতন্ত্র প্রার্থী যুক্তরাজ্য প্রবাসী মুকিতুর রহমানী, আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী যুক্তরাজ্যপ্রবাসী মকসুদ কোরেশী, আজহার কামালী, তানভীর আহমদ কামালী, আজাদ হোসেন চৌধুরী। আশারকান্দি ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ্ব আব্দুস সত্তার, স্বতন্ত্র প্রার্থী সাবেক চেয়ারম্যান আইয়ুব খান, আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী সৈয়দ জমিরুল হক, স্বতন্ত্র প্রার্থী আহমেদ হোসাইন, স্বতন্ত্র প্রার্থী গোলাম কিবরিয়া চৌধুরী পারভেজ, স্বতন্ত্র প্রার্থী লেবু মিয়া, শাহ তারেক রহমান, মোহাম্মদ আলী, আবু বক্কর খান। পাইলগাঁও ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান স্বতন্ত্র প্রার্থী মুখলিছ মিয়া, আওয়ামী লীগের দলীয় প্রার্থী সুন্দর উদ্দিন, স্বতন্ত্র প্রার্থী যুক্তরাজ্যপ্রবাসী ফারুক মিয়া, স্বতন্ত্র প্রার্থী বিএনপি নেতা দবিরুল ইসলাম মনোনয়নপত্র দাকিল করেছেন।
এদিকে মনোনয়ন দাখিলের শেষ দিনে নির্বাচনী এলাকাগুলোতে উৎসবের আমেজ বিরাজ করছিল। সকাল থেকে প্রার্থীরা তাদের লোকজন নিয়ে খন্ড খন্ড মিছিল নিয়ে উপজেলা সদরে আসেন। কোন কোন প্রার্থী বিশাল শো- ডাউন করে মিছিলসহকারে এসে মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন। এসময় বিভিন্ন প্রার্থীদের মিছিলে আর শ্লোগানে উৎসবমুখর হয়ে উঠে উপজেলা পরিষদ এলাকা।
গত ১০ নভেম্বর নির্বাচন কর্তৃক চতুর্থ ধাপের জগন্নাথপুরের সাতটি ইউনিয়নে নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করে। ইউনিয়নগুলো হচ্ছে কলকলিয়া, পাটলী, চিলাউড়া-হলদিপুর, রানীগঞ্জ, সৈয়দপুর-শাহারপাড়া, আশারকান্দি ও পাইলগাঁও ইউনিয়ন। এই সাত ইউনিয়নের মধ্যে কলকলিয়া, পাটলী ও রানীগঞ্জ ইউনিয়নের নির্বাচন রিটার্নিং কর্মকর্তা হিসেবে দায়িত্বে ছিলেন যথাক্রমে উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মুজিবুর রহমান, চিলাউড়া-হলদিপুর ও পাইলগাঁও ইউনিয়নের রিটার্নিং কর্মকর্তা উপজেলা কৃষি অফিসার শওকত ওসমান মজুমদার এবং সৈয়দপুর ও আশারকান্দি ইউনিয়নে উপজেলা প্রকৌশলী কর্মকর্তা গোলাম সারোয়ার।
জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও রিটার্নিং অফিসার মুজিবুর রহমান বলেন, ২৩ ডিসেম্বর এর পরিবর্তে ২৬ ডিসেম্বর ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। জগন্নাথপুরে সাতটি ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ৪০ জন। সাধারণ সদস্য পদে ২৪০ জন ও সংরক্ষিত পদে নারী প্রার্থী ৮৯ জন মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন। ২৯ নভেম্বর প্রার্থী যাছাই বাছাই, ৬ ডিসেম্বর প্রার্থিতা প্রত্যাহার এবং ৭ ডিসেম্বর প্রতীক বরাদ্দ করা হবে।
দিরাই
দিরাই উপজেলার ৯টি ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনে মোট ৫৩৬ জন মনোনয়ন দাখিল করেছেন। বৃহস্পতিবার ৯ ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার জন্য চেয়ারম্যান পদে ৬০, মেম্বার ৩৬৭ ও সংরক্ষিত মহিলা সদস্য পদে ১০৯ জনসহ মোট ৫৩৬ প্রার্থী মনোনয়ন ফরম জমা দিয়েছেন। এর মধ্যে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের ৯, ইসলামি আন্দোলন বাংলাদেশ ১, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের ১ ও ৪৯ জন স্বতন্ত্র প্রার্থী রয়েছেন। দিরাই উপজেলা নির্বাচন অফিস সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।
রফিনগর ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ৬, মেম্বার ৩৬, সংরক্ষিত ১৩। ভাটিপাড়া ইউনিয়নে চেয়ারম্যান ৬, মেম্বার ৩৫, সংরক্ষিত ১২। রাজানগর ইউনিয়নে চেয়ারম্যান ৬, মেম্বার ৪১, সংরক্ষিত ১৫, চরনারচর ইউনিয়নে চেয়ারম্যান ৭, মেম্বার ৫১, সংরক্ষিত ১৭। দিরাই সরমঙ্গল ইউনিয়নে চেয়ারম্যান ৮, মেম্বার ৪০, সংরক্ষিত ৯। করিমপুর ইউনিয়নে চেয়ারম্যান ৭, মেম্বার ৩৫, সংরক্ষিত ১০। জগদল ইউনিয়নে চেয়ারম্যান ৬, মেম্বার ৩৮, সংরক্ষিত ৯। তাড়ল ইউনিয়নে চেয়ারম্যান ৬, মেম্বার ৪০, সংরক্ষিত ১৩ ও কুলঞ্জ ইউনিয়ন থেকে চেয়ারম্যান ৮, মেম্বার ৫১, সংরক্ষিত ১১ জন প্রার্থী মনোনয়ন জমা দিয়েছেন।
দিরাই উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা বলেন, আগামী ২৬ ডিসেম্বর ইউপি নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার জন্য উপজেলার ৯ ইউনিয়ন থেকে চেয়ারম্যান-মেম্বার ও সংরক্ষিত মহিলা মেম্বারসহ ৫৩৬ জন প্রার্থী মনোনয়ন ফরম জমা দিয়েছেন। ২৯ নভেম্বর প্রার্থীদের জমা দেয়া মনোনয়ন ফরম যাচাই-বাছাই করা হবে।
রফিনগর ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী শৈলেন্দ্র কুমার তালুকদার, বিদ্রোহী প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান রেজুয়ান হোসেন খান, সাবেক চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর চৌধুরী, স্বতন্ত্র প্রার্থী বিএনপি নেতা বদরুল আলম, আওয়ামীলীগ নেতা আতিকুর রহমান, রিয়াজ উদ্দীন।

ভাটিপাড়ায় ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকের প্রার্থী মাহমুদুল হাসান চৌধুরী সিরাজ, বিদ্রোহী প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান শাহজাহান কাজী, বদরুল ইসলাম চৌধুরী মিফতা, বিএনপি নেতা রুহুল আমিন তালুকদার, যুবলীগ নেতা বিজিত চন্দ্র দাস, স্বতন্ত্র শিব্বীর আহমদ।

রাজানগরে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকের প্রার্থী মো. সফিকুল হক তালুকদার, বিদ্রোহী প্রার্থী জহিরুল ইসলাম জুয়েল, মো. নুরুল আমিন, মো. রানা মিয়া, নওশেরান চৌধুরী, মো. রুনু মিয়া সর্দার।

চরনারচরে আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকের প্রার্থী জগদীশ সামন্ত, বিদ্রোহী প্রার্থী পরিতোষ রায়, পরেশ লাল রায়, স্বতন্ত্র রতি কান্ত দাস, তুরাব আলী, সামছুল আলম তালুকদার, রুকনুজ্জামান জহুরী।

দিরাই সরমঙ্গলে আওয়ামীলীগের নৌকা প্রতীকের প্রার্থী রঞ্জিত রায়, বিদ্রোহী প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান এহসান চৌধুরী, কানু লাল দাস, সেলিম মিয়া, আবুল বাশার, তপন দাস, জাসদের কৃষ্ণ কান্ত রায়, স্বতন্ত্র প্রার্থী মোয়াজ্জেম হোসেন জুয়েল।

করিমপুরে আওয়ামীলীগের নৌকা প্রতীকের প্রার্থী লিটন চন্দ্র দাস, বিদ্রোহী প্রার্থী মো. সিজিল মিয়া, স্বতন্ত্র প্রার্থী বর্তমান ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান বিএনপি নেতা মো. নজরুল ইসলাম, মো. আতাউর রহমান বাদশা, মো. সেলিম সরদার, জাসদের তপু দাস ও যুবলীগ নেতা মো. রামীম চৌধুরী।

জগদল ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকের প্রার্থী মো. হুমায়ুন রশিদ, বিদ্রোহী প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান শিবলী আহমেদ বেগ, স্বতন্ত্র আব্দুল বসিত, তোফায়েল আহমদ, ইমদাদুল হক আরকান, বাংলাদেশ ইসলামী আন্দোলনের হাত পাখা মার্কায় মো. জহিরুল ইসলাম।

তাড়ল ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকের প্রার্থী আহম্মদ চৌধুরী, বিদ্রোহী প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান আব্দুল কদ্দুস, সাবেক চেয়ারম্যান আকিকুর রেজা পুলিশ, স্বতন্ত্র প্রার্থী সাবেক চেয়ারম্যান নুরুল হক তালুকদার, আলী আহমেদ, লাল মিয়া। কুলঞ্জ ইউনিয়নে দলীয় প্রার্থী আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকের প্রার্থী মো. মিলন মিয়া, বিদ্রোহী প্রার্থী পবিত্র মোহন দাস, চান মিয়া চৌধুরী, স্বতন্ত্র প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান মুজিবুর রহমান তালুকদার, একরার হোসেন, আলাউর রহমান আলা, লন্ডন প্রবাসী আনহার মিয়া,আবু সালেহ।
বিশ্বম্ভরপুর
বিশ্বম্ভরপুর উপজেলার ৫ ইউনিয়নে ৩২৬ জন পদ প্রার্থী মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন। সলুকাবাদ ও ফতেপুর ইউনিয়নের রিটার্নিং অফিসার মো. আব্দুর রহমান জানান, সুলকাবাদ ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ৪ জন, সাধারন সদস্য পদে ৩৫ জন, সংরক্ষিত পদে ১০ জন এবং ফতেপুর ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ৭ জন, সাধারন সদস্য পদে ৪৭ জন, সংরক্ষিত পদে ১৫ জন মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন।
ধনপুর, পলাশ ও বাদাঘাট (দঃ) ইউনিয়নের রিটার্নিং অফিসার মো. মঞ্জরুল হক জানান, ধনপুর ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ৭ জন, সাধারন সদস্য পদে ৪৬ জন, সংরক্ষিত পদে ১১ জন। পলাশ ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ১০ জন, সাধারন সদস্য পদে ৫৯ জন, সংরক্ষিত পদে ২০ জন। বাদাঘাট (দঃ) ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ৪ জন, সাধারন সদস্য পদে ৪১ জন, সংরক্ষিত পদে ১০ জন মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন।