- সুনামগঞ্জের খবর » আঁধারচেরা আলোর ঝলক - https://sunamganjerkhobor.com -

৩০০ ছাড়াল আক্রান্তের সংখ্যা

স্টাফ রিপোর্টার
করোনায় আক্রান্তের সংখ্যাও বাড়ছে। এই ভাইরাসে গত চব্বিশ ঘণ্টায় ৩৪ জন শনাক্তের মধ্য দিয়ে আক্রান্তের সংখ্যা ৩০৪ জনে দাঁড়িয়েছে।
রবিবার ছাতক উপজেলায় ২২ জন, দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলার ১ জন, জামালগঞ্জ উপজেলার ৫ জন, সুনামগঞ্জ সদর উপজেলায় ১ জন, তাহিরপুর উপজেলায় ২ জন, এবং দোয়ারাবাজার উপজেলায় ৩ জন শনাক্ত হন।
সিভিল সার্জন ডা. শামস উদ্দিন জানান, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শাবি) পিসিআর ল্যাবে করোনা পরীক্ষা শেষে রবিবার রাতে নতুন করে ৩৪ করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন বলে জানানো হয়েছে।
এদিকে কোভিড ১৯ পরিস্থিতি নিয়ে সোমবার জেলা প্রশাসনের প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়-সুনামগঞ্জে নতুন করে হোম কোয়ারেন্টাইনে গেছেন ৩৬ জন। কোয়ারেন্টাইন থেকে ছাড়পত্র পেয়েছেন ২৩ জন। আইসোলেসনে নেয়া হয়েছে ৩৪ জনকে। আরোগ্য লাভ করেছেন ১ জন। বর্তমানে কোয়ারেন্টাইনে আছেন ২৪৫ জন। এছাড়াও বিদেশ প্রত্যাগত আরও ২৩ জন প্রবাসী সুনামগঞ্জে এসেছেন।
বিজ্ঞপ্তিতে আরো জানা যায়, অদ্যাবদি মোট কোয়ারেন্টিনে এসেছেন ৫৪৪৪ জন। পাশাপাশি কোয়ারেন্টিন সম্পন্ন করেছেন ৫২৯৯ জন। এ পর্যন্ত সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন মোট ৮১ জন। বর্তমানে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে আছেন ৩২ জন এবং আইসোলেসনে আছেন ৩০৪ জন। গত ১ মার্চ থেকে বিদেশ থেকে জেলায় এসেছেন ২৫৮৫ জন।
করোনাভাইরাস শনাক্তে বৃহস্পতিবার পর্যন্ত সুনামগঞ্জে ৪ হাজার ৪৪৯ টি নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। পরীক্ষা করা হয়েছে ৩ হাজার ৭৯২ টি নমুনা। সবচেয়ে বেশী ৭৮১ টি নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে সুনামগঞ্জ সদর উপজেলা থেকে। এরমধ্যে রিপোর্ট পাওয়া গেছে ৬৮৫ জনের।
এছাড়াও দক্ষিণ সুনামগঞ্জে ২৪৯ জনের নমুনা সংগ্রহ করে ২০৯ জনের, দিরাই উপজেলায় ২৭০ জনের নমুনা সংগ্রহ করে ২৫৭ জনের, শাল্লা উপজেলায় ২৩১ জনের নমুনা সংগ্রহ করে ২০৫ জনের, বিশ^ম্ভরপুর উপজেলায় ৩৬২ জনের নমুনা সংগ্রহ করে ৩১৮ জনের, তাহিরপুর উপজেলায় ২৩৫ জনের নমুনা সংগ্রহ করে ২১৮ জনের, জামালগঞ্জ উপজেলায় ৪০২ জনের নমুনা সংগ্রহ করে ২৬৫ জনের, ধর্মপাশা উপজেলায় ২৮৩ জনের নমুনা সংগ্রহ করে ২৭৩ জনের, দোয়ারাবাজার উপজেলায় ৪৭৩ জনের নমুনা সংগ্রহ করে ৪৬১ জনের, ছাতক উপজেলায় ৭৯৭ জনের নমুনা সংগ্রহ করে ৬৩৬ জনের, জগন্নাথপুর উপজেলায় ৩৬৬ জনের নমুনা সংগ্রহ করে ২৬৫ জনের নমুনার রিপোর্ট পাওয়া গেছে।
এই পর্যন্ত জেলায় ৩০৪ জনের শরীরে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছে। এরমধ্যে সুনামগঞ্জ সদর উপজেলায় ৯৫ জন, দিরাই উপজেলায় ৭ জন, দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলায় ১৫ জন, ছাতক উপজেলায় ৭৩ জন, জগন্নাথপুর উপজেলায় ১৭ জন, দোয়ারাবাজার উপজেলায় ২৭ জন, শাল্লা উপজেলায় ১১ জন, জামালগঞ্জ উপজেলায় ১৩ জন, বিশ্বম্ভরপুর উপজেলায় ১৩ জন, ধর্মপাশা উপজেলায় ১৭ জন, তাহিরপুর উপজেলায় ১৬ জন।
বর্তমানে জেলায় আইসোলেসনে আছেন ৮৩ জন। এরমধ্যে সুনামগঞ্জ সদর ও হাসপাতালে ৯১ জন, দক্ষিণ সুনামগঞ্জে ৬ জন, শাল্লা উপজেলায় ২ জন, বিশ^ম্ভরপুর উপজেলায় ৭ জন, তাহিরপুর উপজেলায় ৮ জন, জামালগঞ্জ উপজেলায় ১০ জন, ধর্মপাশা উপজেলায় ১৭ জন, দোয়ারাবাজার উপজেলায় ২৭ জন, ছাতক উপজেলায় ৭৩ জন, জগন্নাথপুর উপজেলায় ১৭ জন।
এদিকে আজ পর্যন্ত করোনা থেকে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ৮১ জন। এরমধ্যে সুনামগঞ্জ সদর ও হাসপাতাল থেকে ৪ জন, দোয়ারাবাজার উপজেলা থেকে ৮ জন, দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা থেকে ৯ জন, শাল্লা উপজেলা থেকে ৯ জন, জগন্নাথপুর উপজেলার ৭ জন, দিরাই উপজেলা থেকে ৭ জন, ছাতক উপজেলার ৬ জন, জামালগঞ্জ উপজেলা থেকে ৩ জন, বিশ^ম্ভরপুর উপজেলা থেকে ৬ জন, তাহিরপুর উপজেলা থেকে ৮ জন, ধর্মপাশা উপজেলা থেকে ১৪ জন।
উল্লেখ্য, করোনা চিকিৎসার জন্য সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে ১০০টি বেড প্রস্তুত করা হয়েছে। এছাড়াও ২০ জন ডাক্তার ও ১৪৩ জন নার্সও রয়েছেন। ছাতক, দোয়ারাবাজার, বিশ্বম্ভরপুর, তাহিরপুর, জামালগঞ্জ, জগন্নাথপুর, ধর্মপাশা, দিরাই, শাল্লা উপজেলায় ৩টি করে বেড এবং সুনামগঞ্জ জেনারেল হাসপাতাল ও আনিছা হেলথ কেয়ারে ২টি করে বেড প্রস্তুত করা হয়েছে। চিকিৎসার জন্য ১৩১ টি বেড রয়েছে। এছাড়াও ৮৬ জন ডাক্তার, ২৪৭ জন নার্স প্রস্তুত রয়েছেন। আক্রান্তদের জরুরী চিকিৎসায় স্থানান্তরের প্রয়োজনে ১ টি এম্বুলেন্স প্রস্তুত রয়েছে। জরুরী বিভাগে আইসোলেশনের ব্যবস্থাও রয়েছে।

  • [১]